ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

বিটিসিএল যা এক সময় টি এ্যান্ড টি নামে পরিচিত ছিল। এবং সমাজের উঁচু স্তরের লোকজন এটা ব্যাবহার করত। এক সময় বিটিসিএল ল্যান্ড ফোনের ব্যাপক চাহিদা ছিল। কিন্তু মোবাইল আসার পর ল্যান্ড ফোনের চাহিদা কমতে থাকে। এবং মোবাইল অপারেটর গুলো দ্রুত এবং আধুনিক সার্ভিস প্রদান করতে থাকে। প্রতিযোগিতার মুখে সকল মোবাইল অপারেটর গুলো তাদের কল রেট কমায় সেই সাথে বিটিসিএল ল্যান্ড ফোনও তাদের কল রেট কমাতে বাধ্য হয়। বিটিসিএল ল্যান্ড ফোনের লাইন রেন্ট নামে আলাদা একটি চার্জ আছে। যা সমগ্র বাংলাদেশে এক সময় ছিল ১৫০ টাকা যা পরবর্তী সময়ে কমিয়ে বিভাগীয় শহরে ৮০ টাকা এবং অন্য সকল শহরে ৭০ টাকা করা হয়। সেই সাথে বিটিসিএল টু বিটিসিএল ৩০ পয়সা এবং অন্য অপারেটরে ৬৫ পয়সা নির্ধারন করা হয়। এই স্বল্প রেটের কারনে অনেকেই আবার বিটিসিএল এর প্রতি আগ্রহ দেখায়। কিন্তু নভেম্বর মাস থেকেই লাইন রেন্ট এক লাফে জেলা শহরে ১২০ টাকা এবং ঢাকা এবং চট্টগ্রামে ১৬০ টাকা করা হয় । সেই সাথে অন্য অপারেটরে ৬৫ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৮০ পয়সা করা হয়। বিটিসিএল শুধূ অফ পিকে রাত ৮ টা থেকে সকাল ৮ টা পর্যন্ত কল রেট কমিয়ে বিটিসিএল টু বিটিসিএল ১০ পয়সা নির্ধারন করে।এতে বিটিসিএল ব্যবহারকারীদের তেমন কোন সুবিধা হচ্ছে না কারন দেশে বিটিসিএল ব্যবহারকারীর সংখ্যা দেশে খুবই কম। বিটিসিএল সর্ম্পূন অযৌক্তিক ভাবে লাইন রেন্ট এবং কল রেট বৃদ্ধি করেছে । সেই সাথে বিটিসিএল এর সার্ভিস এর মান ভাল না হয়ে আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে। আমার বিটিসিএল কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ তারা তাদের এই উদ্ভট সিদ্ধান্ত বদল করে রাষ্ট্রীয় এই টেলিফোন সংস্থাকে অন্য সব অপারেটরের মত যুগ উপযোগী করে গড়ে তুলবে।