ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

আমি কিছু দিন আগে একটা পোস্ট করেছিলাম জমি দখল সম্পর্কে।আজকে আপনাদের জানাবো সেটার বিস্ফোরণ …………….।

জমির মালিকের নাম মোঃ মোকাদ্দস আলী। ঝিনাইদহের সদর থানার গান্নাবাজারের জনতা ব্যাংকের পাশে তার জমিটি।মোকাদ্দসের বাবা মাওলানা বজলুর রহমান কয়েক বছর আগেই মারা গেছে। মোকাদ্দসের আরও দুটি ভাই ৪৫ পার করলেও আজও অবিবাহিত। বাজারের উপরে তাদের এখন যা জমি আছে তার মূল্য প্র্যায় ৫ কোটি।তাদের এই মূল্যবান জমির উপর এলাকার কম বেশি সবারই লোভ আছে। সেই লো্ভ সবাই সামলে থাকলেও সামলাতে পারেনি পাশের থানার ফাজিলপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর ও তার বাবা। স্থানীয় আওয়ামীলীগ কিছু নেতা যেমন,নাসির,আয়ুব,গৌতম, এবং এদের ক্যাডার মমিন,সুফল,রফিকুল,নাসির,জাহাঙ্গীর,তারেক সহ আরও অনেকের সাথে চুক্তি হয় ফাজিল পুরের জাহাঙ্গীর ও তার বাবার।জাহাঙ্গীর ও তার বাবা উপরে উল্লিখিতদের ৩ লাখ টাকা দেয়।তারা আরও বেতাই চণ্ডিপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই রহিম কেউ ৫০ হাজার টাকা দেয়। তারা এই সুবাদে মোকাদ্দসদের মৃত্যুর হুমকি,ও মামলার ভয় দেখিয়ে জমি ছিনিয়ে নিতে চাই। এ ব্যপারে এস আই রহিম তাদের পূর্ণ সহযোগিতা করে আসছে।

এতদিন তারা এগুলো করে আসছিল আওয়ামী ক্ষমতার বলে।কিন্তু গান্নার সাধারন জনতা সেটা মেনে নেই নি।কো্টের রায়ে মোকাদ্দস আলি তাদের ঘরে দখল নিলে গতকাল এস আই রহিম কালকে আবার কোটকে অবমাননা করে টাকার বিনিময়ে ফাজিল পুরের জাহাঙ্গীরের পক্ষে মোকাদ্দস আলি কে হুমকি দিতে আসে।এতে সাধারন জনগন ও আওয়ামীলীগের কিছু অংশ পুলিশের উপর চড়াও হয়ে ওঠে। মুহুর্তের মধ্যেই প্রায় ৩০০০ হাজার লোক পুলিশ ঘিরে ধরে।পুলিশ বেমালুম ভূলে যাই জনতার জন্যই পুলিশ।এস আই রহিম শুধু টাকার গোলাম।সে না মানে আইন কে না মানে সরকার কে।টাকা যার রহিম তার।এদিকে পুলিশকে দিয়ে হুমকি দেওয়ানোর কাজটা এবং এলাকার যত চাঁদাবাজি, বিনা অপরাধে মানুষকে পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে দেওয়া,মিথ্যা অভিযোগ সাধারন মানুষকে হয়রানি।পুলিশি ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে জর করে হিন্দু পরিবারের মেয়েদের সাথে দৈহিক সম্পর্ক ইত্যাদি অত্যন্ত জঘন্য কাজের সাথে লিপ্ত সুফল,বেকার ছেলে বাবার কোন জমি জমা নেয় বাবা একটি দোকানের ৩০০০ টাকা বেতনের কাজ করে।অল্প কিছু দিনের মধ্যেই সে ১৫ লাখ টাকা খরচ করে বাড়ী করছে।এ সব অবৈধ্য টাকা।এখনও সূর্য্য পূর্ব দিকে ওঠে ।সবার প্রতি আমার আহবান এই অসহায় মোকাদ্দস আলির বাপের ভিটা যেন ওরা দখল করতে না পারে সেই লক্ষে এই সংবাদ টা সমগ্র জাতির বিবেকের কাছে পৌছে দিন।এরকম করে হয়ত একদিন ওরা আমার আপনার বাবার ভিটায় হাত লাগাবে।আর এস আই রহিমের মত হায়না আমাদের নিরাপত্তার জন্য লাগবে না।এখানে আওয়ামীলীগের কিছু দুষ্টু লোক মুজিবের আদর্শ কে ডুবিয়ে দিল।জনতা এদের মুখে থুতু দিয়েছে , না জানি কখন পিটিয়ে এদেশ থেকে তাড়িয়ে দেয়।

আশা করছি সকল পাঠক এই সংবাদ টুকু প্রশাসনের নজরে পড়তে ভূমিকা রাখবেন।