ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

 

১১.০৪.২০১২

ময়মনসিংহে অবস্থিত বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) শাখা ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি গঠনের প্রায় দু’বছর পর অবশেষে গত মঙ্গলবার আলোর মুখ দেখলো হল কমিটি। বিশ্ববিদ্যালয়ের বারটি হলের মধ্যে সাতটি হলে কার্যনির্বাহী কমিটি গঠন করা হলেও হল কমিটি থেকে ছিটকে পড়েছে ছাত্রদের ২ হলসহ কৃষিকন্যাদের সবকটি হল। হল কমিটি থেকে ছিটকে পড়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ওই সব হলের নেতাকর্মীরা।

জানা যায়, বাকৃবি’র শাখা ছা্ত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি গঠনের দীর্ঘ দু’বছর পর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল নেতাকর্মীদের দাবির মুখে অবশেষে আলোর মুখ দেখলো হল কমিটি। গত মঙ্গলবার বাকৃবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শামছুদ্দিন আল আজাদ ও সাধারণ সম্পাদক রফিকুজ্জামান ইমন বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২ টি হলের মধ্যে ছাত্রদের ২ হলসহ কৃষিকন্যাদের সবকটি বঞ্চিত রেখেই হল কমিটির ঘোষণা দেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বারিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২ টি হলের মধ্যে ৭টি হলের পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠনের কথা বলা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ফজলুল হক হলের সভাপতি মাহবুব-উল-ইসলাম সুবজ ও সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ সাগর; বঙ্গবন্ধু হলের সভাপতি শামীম রহমান কুশল ও সাধারণ সম্পাদক সুমন পারভেজ; সোহরাওয়ার্দী হলের সভাপতি শাহাবুদ্দিন শিহাব ও সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান রতন; আশরাফুল হক হলের সভাপতি আহসান রাকিব খান ও সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল হক; জামাল হোসেন হলের সভাপতি রাহাদুজ্জামান আকন্দ ও সাধারণ সম্পাদক আজহারুল ইসলাম প্রিন্স; নাজমুল আহসান হলের সভাপতি জাকারিয়া আলম ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আহাদ এবং শামসুল হক হলের সভাপতি ওবায়দুল ইসলাম খান অপু ও সাধারণ সম্পাদক লিমন দেবকে মনোনীত করা হয়েছে। এদিকে হল কমিটি থেকে ছাত্রদের ঈশা খাঁ ও শাহজালাল হলসহ ছা্ত্রীদের ৩ হল বাদ পড়ায় হলের নেতাকর্মীদের মধ্যে চাপা ােভ বিরাজ করছে বলে জানা গেছে।

হল কমিটি থেকে বাদ ৫টি হল সম্পর্কে বাকৃবি ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বলেন, প্রথম ধাপে ৭টি হলের পূর্নাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। পরবর্তীতে বাকি হলগুলোর কমিটিও ঘোষণা করা হবে।
###
মোহাম্মদ জুয়েল আলম
বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ।