ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

 

ফ্যাশন ডিজাইনিং সাব্জেক্টটা ইদানিং তরুন সমাজে বেশ জনপ্রিয়! (আমার কাছে ভালো লাগে এটা ভেবে যে- যাক এরা অন্তত প্রচলিত “ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার” হবার মুকস্ত “এইম ইন লাইফ” থেকে বেরুতে পেরেছে। কিন্তু এই লেখার বিষয়বস্তু সেটা না…) আমার বর্তমান (উত্তরা) অফিসের ওপরেই “বি,জি,এ,এম,ই ইন্সটিটিউট অফ ফ্যাশন এন্ড টেকনোলজি (বি,আই,এফ,টি)”-এর ক্যাম্পাস। বাবা-মায়ের লাখ লাখ টাকা খরচ করে এখানে ওনেক ছেলেমেয়ে পড়তে আসে। দেখে ভাল লাগে- একটা ক্রিয়েটিভ প্রোফেশনকে সামনে নিয়ে এই ছেলেমেয়েগুলো এগিয়ে যাচ্ছে। হয়তো কোন একদিন এরাই স্ব-স্ব সেক্টরে রাখবে অনন্য অবদান, দেশের জন্য নিয়ে আসবে বিশ্ব স্বীকৃত সম্মান…

কিন্তু ইদানিং প্রায়ই খেয়াল করছি- আমার অফিসের সামনের গলি মত জায়গাটাতেই এই সব “সোনালী ভবিষ্যতের” ছেলেমেয়েগুলো দল বেধে সিগারেটের ভেতর গাঁজা ভরে টানছে! কেউ কেউ আবার নানা রকম “পানীয়” পর্যন্ত নিয়ে আসে! এবং প্রায় প্রতিটি আড্ডাতেই মেয়েদের উপস্থিতি এবং অংশগ্রহণ লক্ষণীয়!

আমি অবাক হয়ে যাই… ব্যথিত হৃদয়ে ভাবি- ক্রিয়েটিভ হতে হলে কি নেশা করাটা আবশ্যক?

এই লেখার শুরুতে “ফ্যাশন ডিজাইনিং” এবং “বি,আই,এফ,টি”-এর নাম উল্লেখ করেছি বলে যে কেবল এখানেই এমন ঘটছে ব্যাপারটা মোটেই তা নয়। আমি ব্যক্তিগতভাবে দেখেছি- চারুকলার সামনে সন্ধ্যার পর অনেক নেশাগ্রস্থ ছেলেমেয়েদের ঘুরে বেড়াতে। আমার এক বন্ধু সেদিন তার পরিচিত একজনের কথা বলছিল এভাবে- “ও তো এখন ডাইল না খেয়ে থাকতেই পারে না… বুঝিসই তো- ব্যান্ড-ট্যান্ড করে তো, ওসব লাইনে একটু আধটু নেশা করতেই হয়!”
তার কথা শুনে মনে হলো- “ব্যান্ড-ট্যান্ড” করলে, গান বাজনা করলে, শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি চর্চা করলে একটু আধটু নেশা করাটাই নিয়ম! তার একথার মানে আমি বুঝি নাই; আমি সত্যি বুঝি না- কেন একজন মানুষকে সাহিত্য-শিল্প-সংস্কৃতি, ক্রিয়েটিভ কোন কিছুতে অবদান রাখতে হলে নেশাগ্রস্থ হতে হবে???

শুরুর প্রসংঙ্গটাতে ফিরে যাই। কথা হচ্ছে- “ফ্যাশন ডিজাইনিং-ই হোক আর ইংলিশ মিডিয়াম-ই হোক, মেডিকল-ই হোক আর বুয়েট-ই হোক, জাতীয় বিশ্ব বিদ্যালয়-ই হোক আর প্রাইভট ভার্সিটি-ই হোক, সব জায়গাতেই আজকাল দেখি মাদকের ছড়াছড়ি! স্মার্টনেস দেখানোর এ কি রকম কুৎসিত প্রতিযোগীতা? কিসের এতো হতাসা এদের? কেন এই নেশার মাদকতায় ডুবে থাকার আকাঙ্খা???

আজকাল কেবল-ই মনে হয়- অন্ধকার যুগে বাস করছি আমরা এখন। এ থেকে পরিত্রান দরকার! সত্যি খুব দরকার! আমাকেসহ আমাদের এই তরুণ প্রজন্ম নিয়ে আমি বরাবরই ভীষণ আশাবাদী। আমি সত্যি সত্যি বিশ্বাস করি-

“…ঊষার দুয়ারে হানি আঘাত
আমরা আনিব রাঙ্গা প্রভাত
আমরা টুটিব তিমির রাত…”

যদিও আমি জানি না, কে কে আমার সাথে আছে… তাতে কী? অন্তত আমি তো আছি! এটাই বা কম কী?

-সফিক এহসান
১২.০১.১৩ ইং