ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

আ,লীগ 1975 এ বাকশাল গঠন করে সব পার্টি বিলুপ্ত করে দিয়েছিলেন, চারটি পত্রিকা বাদে সব বন্ধ করে দিয়েছিলেন । সেই সময় এক নেতা এক দেশ এমন একটি ভাবধারা সৃষ্টি করেছিলেন । বিরোধী কোন মত আ,লীগ কখনই সহ্য করতে চায় না । বিরোধী দল এর রাজপথের কোন কর্মসূচী আ,লীগের পছন্দ হয় না । যদি পছন্দ হতই তাহলে ১২ ই মার্চ এর চার দলের মহা সমাবেশ কে ঘিরে এভাবে সব কিছু বন্ধ করে অঘোষিত সরকারী হরতাল দিয়ে দিত না ।
– সকল আন্ত জেলা বাস চলাচল বন্ধ
– লঞ্চ স্টিমার চলাচল বন্ধ
– বুরিগঙ্গা পারাপারের খেয়া নৌকা বন্ধ
– আবাসিক হোটেল বন্ধ ( যা কিনা স্বাভাবিক হরতালে ও খোলা থাকে )
– খাবারের রেস্তোরাঁ গুলো বন্ধ
– শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো বন্ধ
– জায়গায় জায়গায় হয়রানি মুলক চেক করা

ডিজিটাল বাকশাল এ হয় তো আরও অনেক কিছু বন্ধ হবে । হোটেল কর্মচারী বলছেন পুলিশ এসে বন্ধ রাখতে বলেছে, বাসে র শ্রমিক বলছে পুলিশ বলে গেছে বাস সার্ভিস বন্ধ রাখতে, লঞ্চ শ্রমিক বলছে পুলিশ এসে বলে গেছে বন্ধ রাখতে, অন্যদিকে পুলিশ এবং আ,লীগ নেতা , মন্ত্রীরা সব কিছু অস্বীকার করে বলছেন তারা বন্ধের কোন আদেশ দেন নি । কপাল পোড়া জাতি নইলে এমন শাসক মাথার উপর থাকে । আমরা জনগন কি এতই বোকা যে এই চাতুরী ধরা পড়বে না । ধীক তোমাদের মত সব মিথ্যা বাদী দের কে । সব মিথ্যা বাদী নিপাত যাক । এখন মহিলাদের মাঝে ও আলোচনা শুনলাম যে , ১৯৯১ র পর ও যেহেতু গণতন্ত্র প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পায় নি তখন মাইনাস ২ ফর্মুলা ই দরকার বাংলাদেশের । এই দুই মহিলার চুলোচুলি / হিংসা হিংসি ও শেষ হবে না আর বাংলাদেশের ভাগ্য ও বদলাবে না । সবাই যদি রাজী না হয়, তা হলে অন্তত পরীক্ষামূলক ভাবেই মাইনাস ২ ফর্মুলা প্রয়োগ হোক । কি বলেন আপনারা ? নাকি আমরা এই রকম ডিজিটাল বাকশাল নিয়মিত করার উদ্যোগী হবো ?