ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

গত ২১ শে জুলাই ২০১১ তে পত্রিকায় দেখলাম, “কাদের সিদ্দিকী রাজাকার, এই মুহূর্তে বাংলা ছাড়” সহ বিভিন্ন স্পর্শ কাতর স্লোগান দিয়ে কাদের সিদ্দিকীর জনসভা পণ্ড করে দেয়। তাও কিনা টাঙ্গাইলের কালিহাতিতে এবং এর জন্য একটি মামলাও হয়েছে।

আর যে লোকগুলি এই স্লোগান দিয়েছে তাদের সবারই বয়স ৪০ এর নিচে এবং আওয়ামী লীগার। আমার মনে হয় মুক্তিযুদ্ধের সময়ের কোন মানুষকে জিজ্ঞাসা করিলে তারা হয়তো বলতে পারবে যে, কাদের সিদ্দিকী যদি না থাকত তবে এদের অনেকেই হয়তো “জারজ সন্তান” হইত নতুবা পৃথিবীর আলো দেখতে পারতনা । কারণ পাকিস্তানিরা তাদের জন্মদাতাদের অনেককেই হয়তো মেরে ফেলতো, অথবা তাদের জনককে মেরে জননীদেরকে রেখে দিত তাদের বানানোর জন্য। আর তারাই আজ আওয়ামিলিগার হয়ে কাদের সিদ্দিকির মত বীর মুক্তিযুদ্ধ , বীরউত্তম ও বঙ্গ বীরকে রাজাকার বলে স্লোগান দেয়। কী অদ্ভুদ আওয়ামী লীগের রাজনীতি।

আর কাদের সিদ্দিকিকে রাজাকার বলার প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেছেন, “আমি রাজাকার হলে বঙ্গবন্ধু ছিলেন রাজাকারের কমান্ডার”। যা যুক্তিবিধ্যার যুক্তিতে সঠিক।

মনে পড়ে গেল বক্তার জাদুকর নামে পরিচিত কিশোরগঞ্জের ফজলুর রহমানের কথা, “৯৯ এর সখীপুরের উপনির্বাচনে ইন্দ্রাজানি বাজারে এক জনসভায় তিনি বলেছিলেন,

যতবার আমি এই মুখে আওয়ামী লীগের কথা বলেছি, যতবার বঙ্গবন্ধুর কথা বলেছি, যতবার শেখ হাসিনার কথা বলেছি ; ততবার যদি আমি আল্লাহর তায়ালার কথা বলিতাম , নবী মুহাম্মদের (সাঃ) এর কথা বলিতাম, হাসান হোসেনের (রাঃ) কথা বলিতাম, শাহজালাল / শাহপরানের (রঃ) কথা বলিতাম তা হলে হয়তো আল্লাহ তায়ালা আমাকে অলি বানিয়ে দিতেন” । সেই আমি আজ আওয়ামী লীগ করিনা, কাদের সিদ্দিকী আওয়ামী লীগ করেনা, ডক্টর কামাল এবং আরও আরও অনেকে আওয়ামী লীগ করেনা ।

আজ আওয়ামীলীগ করে হাজী সেলিম, গড ফাদার জয়নাল হাজারী সহ দেশের বড় বড় গড ফাদার রা । কিন্ত আমরা আওয়ামী লীগ করিনা বন্ধুরা।