ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী ছিলেন অন্যতম একজন সৈনিক। এই বঙ্গবীরের নাম শুনলে তখন পাক বাহিনী এবং রাজাকারদের গা শিউরে উঠত। তার নিজ হাতে গড়া “কাদেরিয়া বাহিনী” মুক্তিযুদ্ধের সময় যে সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল তা কারো অজানা নয়। সারা বাংলাদেশ জানে এই মহান বীরের জীবন বাজী রাখা অবদান। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান তাকে পুত্র বলে সম্বোধন করেছিলেন। এত কিছুর পর এই বীরকে “যুদ্ধপরাধী” বলে বর্তমান নেতারা অপবাদ দিলেন। যা মুলত সকল মুক্তিযোদ্ধাদেরই অপমান করলেন। “আমার প্রতি আক্রোশ কেন” শিরোনামে বাংলাদেশ প্রতিদিনে তার লেখায় গভীর দুঃখ-কষ্ট প্রকাশ করেছেন। তিনি লিখেছেন তার বিরুদ্ধে মোহাম্মদ পুরের ২০/৩০ বাবর রোডের বাড়ি দখলের অভিযোগ আনা হয়েছে। যেখানে তিনি বর্তমানে বসবাসরত। তার দাবী, ১৯৭২ সালের ২২ অথবা ২৪ মার্চ জাতির পিতা এই বাড়ীতে তাকে বসিয়েছেন। তিনি লিখেছেন তার মৃত্যুর পর জাতীয় সংসদ শোক প্রস্তাব আনা থেকে যেন বিরত থাকে সে আবেদন তিনি করেছেন। স্বাধীনতার ৪০ বছর পর একজন মহান বীরের এ ধরনের কষ্ট এবং গভীর ক্ষোভে আমরা লজ্জিত। তার বিরুদ্ধে এ ধরনের মিথ্যা ন্যাক্কারজনক অভিযোগ এনে বর্তমান অতি উৎসাহী নেতারা কী ধরনের আনন্দ পান তা বলা মুশকিল। তিনি অতীতের সকল ঘটনার স্বাক্ষী। যা তিনি নির্ভয়ে বলে ফেলেন। এ কারনেই কী তার বিরুদ্ধে এত অভিযোগ? তিনি সত্য ো ন্যায় কথা বলতে দ্বিধাবোধ করেন না, এটাই সত্যি। এই বীরের অপমান মানে সকল বীরের অপমান। যাদের জন্য বাংলাদেশ স্বাধীন হলো, যাদের জন্য লাল সবুজের পতাকা উড়ছে তাদের বিরুদ্ধেই মিথ্যা অভিযোগ আর ঘৃন্য অপবাদ??