ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

 

১৯৯২ সালের এক প্রজ্ঞাপনে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালেয়র সৃষ্টি। বর্তমানে সারা দেশে ১৬০০ কলেজ এর অর্ন্তভুক্ত এবং ১২ লাখ শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত আছে। কিন্তু এক দীর্ঘ সেশন জট শিক্ষার্থীদের জীবন করে চলেছে দূর্বিষহ। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধীনে বর্তমানে ডিগ্রি, অর্নাস, মাস্টার্সসহ আরো অন্যান্য কোর্স চালু আছে। সেই সাথে প্রতিটি কোর্সেই রয়েছে হতাশা জনক সেশন জট। এই প্রতিষ্ঠানে তিন বছর মেয়াদী ডিগ্রী কোর্সে পাঁচ বছর থেকে সাড়ে পাঁচ বছর এবং চার বছর মেয়াদী অর্নাস কোর্সে সময় লাগছে সাড়ে ছয় থেকে সাত বছর। মাস্টার্স শিক্ষার্থীরা এ থেকে পরিত্রাণ পাচ্ছে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা মধ্যবিত্ত অথবা নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান। পড়াশুনা শেষ করে পরিবারের আয় উপার্জনে হাল ধরবে এটাই পরিবারের সদস্য ও শিক্ষার্থীদের প্রত্যাশা। অথচ একটি দীর্ঘ সময় ব্যয় করে চাকরির বাজারে প্রতিযোগিতা করতে তাদের প্রতিনিয়ত হিমশিম খেতে হচ্ছে। এতে শিক্ষার্থীরা পড়ছে গভীর হতাশায় এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি শিক্ষার্থীদের আগ্রহ কমে যাচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কর্তৃক সময় মত পরীক্ষা না দেয়া এবং ফলাফল প্রকাশে বিলম্বই সেশন জটকে দিনের পর দিন বাড়িয়ে তুলেছ। বিভিন্ন কলেজের শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাজের গাফিলতিই এ দীর্ঘ সেশন জটের জন্য দায়ী। এ থেকে শিক্ষার্থীরা চায় মুক্তি সেই সাথে সার্বিক উন্নয়ন এবং অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মত পূর্ণ কার্যক্রম।