ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

 


কি করে এই কাদা মাখামাখির রাজনীতি বন্ধ হবে ,আর আদৌ হবে কিনা আমরা জানিনা। বিরোধী দলিও নেত্রী তো বলেই দিয়াছেন খাইরুল সাহেব কে প্রধান উপদেষ্টা বানালে বি এন পি নির্বাচন এ যাবেনা ।তার মানে অভাগা জাতী আর ও একটি ওয়ান ইলেভেন দেখবে খুব তারাতারি।হায় রে আমার দেশ! মাহাথির কি আমার দেশের খবর রাখ? একটি বার আস।দেখে জাও। কত দেশ প্রেম আমাদের দেশের রাজনীতিবিদদের? ক্ষমতা থেকে এরা কেউ নামতে চায়না। আর তুমি কিনা সহসা নামে গেলে। কত অনুরোধ করা হল তোমাকে ।থেকে জাও মাহাথির।তুমি বললে নুতদের হাতে ছাড়তে হবে।আমাদের দুই নেত্রীর অন্তিম মুহূর্ত সামনে এসে দাঁড়ালেও তারা বলবে আর একটি বার ক্ষমতা চাই? আর চাটুকারেরা তো আছেই । যদিও বা তারা অবসরে জেতে চায় কিন্তু চামচা গুলা তাতে বাধা দেয়। এদের মাঝে এমন লোক ও আছে যারা নিজের বাবা,মার কবর একটি বার ও জীবনে জিয়ারত করেছে কিনা আল্লা জানে,তবে তারা নেত্রীদের অনুকম্পা পাবার জন্য হাজার বার জিয়া আর মুজিবের মাজারে জিয়ারতের জন্য যায় আর জিয়ারত করার সময় বার বার মিডিয়ার ক্যামেরার দিকে তাকায়, যাতে ফ্রেমটা ঠিক মত আসে আর ম্যাডাম যেন রাতে পার্টি আফিসে বসে দেখতে পায়।

এই হল অবস্থা।একটা গল্প শুনেছিলাম।এক সময় এর দুর্দান্ত প্রতাপ শালী এরশাদ যখন ক্ষমতায়,তখন তার মাতা মারা যান। রংপুর নিয়ে জাবার পর যখন জানাজা শেষ তখন দাফন করার জন্য কবরের কাছে নিয়ে যাওয়া হয় এরশাদের মাতাকে। তখন কবরের মধ্যে লাফ মেরে সাহ মোয়াজ্জেদ,মউদুদ কান্না করে নাকি বলেছিলেন , “মা মা মা গো তোমার সন্তান দের এতিম করে গেলে মা”। এরশাদ সাহেব নাকি বলেছিলেন “মউদুদ সাহেব, মা তো আমার মরেছে” ! যাই হোক এই তেল মারার রাজনীতি আপাতত বন্ধ হবে বলে মনে হয়না। আমাদের দুই নেত্রী যদি ভুল করে একটি বারের জন্য বলে ওঠেন আমি আগামীতে আর নির্বাচন করব না তবে অনেকেই রেল লাইনে ঝাঁপ দেবে তাতে কোন সন্দেহ নাই।বিগত ওয়ান ইলেভেনে আমরা দেখেছি দুই নেত্রী যখন বন্দী তখন অতি বগ বগ করে দুই নেত্রীর বন্দনা যারা করেছেন, তারা দুই দলে আজ মূল্যায়িত। তাই দেখি মান্নান ভুঁইয়ার মত মানুষ দূরে সরে যায়।তার মৃত্যুর পর নেত্রী তাকে দেখতে পর্যন্ত যায় না। যেই ভুইয়া দলটিকে কত দূর নিয়ে গিয়েছিল সারা বাংলার মানুষ জানত তাকে ম্যাডাম একটি বার দেখতে যায়নি, এই হচ্ছে রাজনীতির কালচার। আবার ১৫ই অগাস্ট কারো শাহাদাৎ বার্ষিকী। আবার কারো ঘৃণিত বানোয়াট তথাকথিত জন্ম দিন। এটার সাফাই আবার অনেকে গায় এই ভাবে “ ১৫ ই অগাস্ট কি কারো জন্ম হতে পারেনা”হায় চামচামি। মানুষের ৩ বার জন্ম ও হয়। পাঠক ভাবছেন আমি কি শুধু বি এন পির পেছনে লেগে গেলাম। না! না! এবার শুনুন আওয়ামীলীগ এর মাজেজা।

দলে সংস্কার করবেন আমু, তোফায়েল, জলিল,রাজ্জাক। আজ তারা পদে নাই।আজ ফারুক খান বাণিজ্য মন্ত্রি। বাজারে ৫০০ টাকা নিয়ে গেলে ২ কেজি পাঙ্গাস মাস আর ৩ কেজি চাল, ১ কেজি ঢ্যাঁড়স ছাড়া কিছু হয়না। তথাকথিত ভিসন ২০/২১ এটা কি সম্ভব এই হাসিনা সরকারের পক্ষে? দলের সেক্রেটারি আশরাফ সাহেবকে খুঁজে পাওয়া যায়না। তিনি কেন অভিমান করে আছেন? সোহেল তাজ কেন পদত্যাগ করে?

তোফায়েল,সুরঞ্জিত,আমু,মান্না, রাজ্জাক,জলিলরা পদ বঞ্চিত হয়।সাহাজান খান,সাহারা,দিপু মনিরা মন্ত্রী হয়। পরস্পর বিরোধী বক্তব্যে আজ মন্ত্রী পরিষদ বিব্রত। অর্থ মন্ত্রী শেয়ার বাজার শেষ করে দিল।তাতে বাতাস দিল লোটাস কামাল।আর কত বলব কষ্ট বড় কষ্টের গল্প। সাহারা মরু ভুমির পানিকে কালি বানিয়ে লেখলেও এই দুই দলের অমর গাঁথা শেষ হবেনা। রাষ্ট্রপতি রেল লাইন বেয়ে দৌড়ে পালায় এই বি এন পির ক্যাডারদের হাত দিয়ে বাঁচতে। আমাদের দুই দল এর মধ্যে মাহাথির মোহাম্মাদ এর অভাব নাই। মাহাথির হতে হলে ঐশ্বরিক বা আধ্যাতিক শক্তির প্রয়োজন পরে না। আমাদের ডক্টরেট ডিগ্রী প্রাপ্ত লোকের ও অভাব নাই। অনেক ভাল মানুষই আছে। কিন্তু এই চামচামির জন্যই আমরা পেয়ে ও পাইনা একজন মাহাথির। তারেক, জয়,বা তাদের পরবর্তী উত্তরসুরি জবেদা,সায়মা,কিংবা ববি এদের পরিবার তন্ত্র আমাদের সহ্য করে যেতে হবে।কেননা ৩০০ টি আসনের মাঝে একটি ও “না” প্রার্থি জিততে পারেনা এটা কিসের আলামত?

আসুন, প্লিজ আসুন, আমরা বদলাই। আমরাই পারব একজন মাহাথির বানাতে। পারব, একটু ভাবুন, বি আন পি, লিগ, জামাত আমাদের কি দিয়েছে ?আজ ভারত কোনদিকে যাচ্ছে? আমরা পরে আছি আস্তাকুঁড়ে। কেন? কারো চামচামি আমরা করব না।আমরা আমাদের দেশকে সাজাবো। প্রয়োজনে প্রার্থি পছন্দ না হলে ভোট দেব না। আমরা শুরু করি। আমরা হয়তো পারব না পুরোপুরি। কিন্তু আমরা শুরু করলে আগামী প্রজন্ম ভোগ করবে। আসুন পরিবার তন্ত্র থেকে বের হই। বিবেকটাকে জাগাই।আর কত বন্দনা! ইতিহাস যাকে যেখানে বসাবে তাঁকে সেই ভাবে মূল্যায়ন দিব। সেইটা বঙ্গবন্ধু,জিয়া,ভাসানি,জেই হোক না কেন।আমরা কারো গোলাম নই। কোন নেতাকে ভাল লাগলে তাঁকে শ্রদ্ধা করব। কিন্তু তাই বলে দলের চামচামি কেন করবো?

আমরা একজন মাহাথির মুহাম্মাদ পাব। পাবই পাবো। ইনশাআল্লাহ্। শুধু আমরা বদলাই। আসুন অন্তত আমদের বয়স যাদের ১৮ থেকে ৩০ তারাই শুরু করি। আমরা শুরু করলে একদিন শেষ হবে। অন্তত যারা তারেক রহমান বা জয়কে মাহাথির বানাতে চায় তাদের থেকে দূরে থাকি, আমরা মহা মানব না হই,অন্তত একজন অ-বিবেকবান মানুষ যেন না হই। মানুষ নাই বা হলাম, অমানুষ যেন না হই।

***
একজন মাহাথির মুহাম্মাদ এর অপেক্ষায়! (পর্ব ১)
একজন মাহাথির মুহাম্মাদ এর অপেক্ষা! (পর্ব ২)