ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

 


আমাদের প্রায় সবারই জানা যে খালেদা জিয়া’র জন্মদিন নিয়ে কিছু বিতর্ক রয়েছে – বিভিন্ন সময়ের বিভিন্ন ডকিউমেন্টস অনুসারে…. আসুন সেই ডকিউমেন্ট গুলো একটু দেখি…..।

আজকে আমার এই পোস্ট কাউকে ছোট করার জন্য নয়। একটি বিতর্কের অবসান চাই। আপনারাই বলুন কারো একাধিক জন্মদিন কি কাম্য?

তথ্য বলে, বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জন্ম ১৯৪৫ সালের ১৫ আগস্ট নয়। তার জন্ম ১৯৪৬ সালের ৫ সেপ্টেম্বর। ১৯৬০ সালে তিনি দিনাজপুর গার্লস স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করার কথা বলা হলেও আসলে তিনি ১৯৬১ সালে ওই স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পরীক্ষায় অংশ নিয়ে অকৃতকার্য হন। দিনাজপুর সরকারি উচ্চবালিকা বিদ্যালয়ের রেকর্ডপত্র ঘেঁটে এসব তথ্য পাওয়া যায়।

দিনাজপুর সরকারি উচ্চবালিকা বিদ্যালয়ের রেকর্ডপত্র ঘেঁটে দেখা যায় : খালেদা খানম, পিতা মোহাম্মদ এস্কেন্দার, সাকিন মুদিপাড়া, থানা কোতোয়ালি, জেলা দিনাজপুর। ১৯৬১ সালে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষায় দিনাজপুর কেন্দ্রের দিনাজপুর সদর গার্লস হাইস্কুল থেকে অংশ নেন এবং পরীক্ষায় অকৃতকার্য হন। তার পরীক্ষার রোল নম্বর ছিল দিন-এফ-৭৯২। পরীক্ষার নম্বরপত্র থেকে দেখা যায়, তিনি ওই পরীক্ষায় ইংরেজি প্রথমপত্রে ২৬, দ্বিতীয়পত্রে ১৫, বাংলা প্রথমপত্রে ৩৮, দ্বিতীয়পত্রে ৩২, গণিতে ৫০, ইতিহাসে ১০, ভূগোলে ২০, ধর্মে ৪২ এবং ঐচ্ছিক বিষয়ে ১৩ নম্বর পান। নম্বরপত্রের ফলাফলের ঘরে ‘অকৃতকার্য’ উল্লেখ করা হয়েছে। সেই সময়কার এক প্রবীণ শিক্ষিক এক সময় বলেছিলেন খালেদা ১৫ বছর বয়সে ম্যাট্রিক পরীক্ষা দিয়েছেন। তার পিতা মোহাম্মদ এস্কেন্দার নিজে এসে তার ম্যাট্রিক পরীক্ষার ফরম পূরণ করে দিয়েছিলেন। জন্ম-তারিখ ৫/০৯/১৯৪৬ইং তার পিতাই ফরম পূরণ করেছিলআমাদের প্রায় সবারই জানা যে খালেদা জিয়া’র কয়েকটি জন্মদিন রয়েছে – বিভিন্ন সময়ের বিভিন্ন ডকিউমেন্টস অনুসারে…. আসুন সেই ডকিউমেন্ট গুলো একটু দেখি…..।





বিয়ের কাবিন নামা

বি এন পির একটি ওয়েব সাইট আসুন দেখি ঐ খানে খালেদার জন্ম দিনের কি তথ্য রয়েছে।