ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

 

বহু আলোচিত ও প্রত্যাশিত ২০১১-২০১২ অর্থ বছরের বাজেট পেশ হল গত কাল। এবারের বাজেটে আমাদের কত টুকু আশা আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটেছে? প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ৭ শতাংশ এবং মূল্যস্ফীতি ৭ দশমিক ৫ শতাংশ ধরে আগামী অর্থবছরের জন্য ১ লাখ ৬৩ হাজার ৫৮৯ কোটি টাকার যে বাজেট প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত,এবং যাতে ৪৫ হাজার কোটি টাকার ঘাটতি থাকছে সেই বাজেট কেমন করে দেখছে দেশের সাধারন মানুষ? অর্থ মন্ত্রী আরও বলেছেন, “আমরা যদি সম্ভাব্য অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক অভিঘাত মোকাবেলা করতে পারি, তবে আগামী অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি ৭ শতাংশ এবং পরের অর্থবছরে তা ৮ শতাংশে উন্নীত হবে”,

ব্যয়ের মধ্যে খাতওয়ারি সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ রাখা হয়েছে জনপ্রশাসন খাতে ১৪ দশমিক ৬ শতাংশ। শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাতে ১২ দশমিক ৪ শতাংশ বরাদ্দ রাখার প্রস্তাব করা হয়েছে। ঋণের সুদ পরিশোধে যাবে ব্যয়ের ১১ শতাংশ। প্রতিরক্ষা খাতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ, কৃষি খাতে ৭ দশমিক ৭ শতাংশ, জ্বালানি ও বিদ্যুতে ৫ দশমিক ১ শতাংশ, পরিবহন ও যোগাযোগে ৬ দশমিক ৯ শতাংশ।

অর্থমন্ত্রী ব্যক্তিশ্রেণীর করদাতাদের করমুক্ত আয়ের সীমা ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা করার প্রস্তাব করেছেন। তবে কোম্পানি শ্রেণীর করদাতাদের করহার অপরিবর্তিত রাখার প্রস্তাব করেছেন তিনি।

২ কোটি টাকার অধিক সম্পদের মালিকদের তাদের প্রদত্ত করের ১০ শতাংশ হারে সারচার্জের প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, স্পিকার, সংসদ সদস্য ও উচ্চ আদালতের বিচারকদের করমুক্ত আয়ের সুবিধা তুলে দেওয়ার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী।

সঞ্চয়পত্রে সুদের হার পরিবর্তনের প্রস্তাবও করেছেন অর্থমন্ত্রী। উৎসে কর কাটার হার ১০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ নির্ধারণের প্রস্তাব করেছেন। পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের কর সনাক্তকরণ চিহ্ন লাগবে না বলে জানিয়েছেন মুহিত।

শুল্ক বাড়ানোর প্রস্তাব করায় যেসব পণ্যের দাম বাড়তে যাচ্ছে, তার মধ্যে রয়েছে- বিলাসবহুল চার দরজাবিশিষ্ট পিকআপ, প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের আমদানি করা পাঠ্যপুস্তক, সিগারেট, বিড়ি, বাস ও ট্রাকের টায়ার, পানির ট্যাপ ইত্যাদি।

সম্পূরক শুল্ক বাড়ানো বা আরোপের প্রস্তাবের কারণে আমদানি করা যেসব পণ্যের দাম বাড়তে পারে, তার মধ্যে রয়েছে- সব ধরনের কাপড়, প্রসাধনী দ্রব্য, সুগন্ধী, জুতার পালিশ, টয়লেট পেপার, রান্নাঘরে ব্যবহৃত কাচের সামগ্রী, গৃহে ব্যবহৃত ফ্যান, ফ্যানের যন্ত্রাংশ, বিভিন্ন বৈদ্যুতিক সুইচ ও আসবাবপত্র।

শুল্ক ও সম্পূরক শুল্ক কমানোর প্রস্তাব করায় যেসব পণ্যের দাম কমতে পারে, তার মধ্যে রয়েছে- এলপি গ্যাস, ইটিপির জন্য আমদানিকৃত রাসায়নিক, ক্যান্সারের কেমাথেরাপি
ওষুধ, বিদ্যুৎসাশ্রয়ী বাতি, সৌরচালিত বাতি, টিউবলাইট ইত্যাদি।

যাই হোক বিরোধী দল ইতি মধ্যেই বলে দিয়েছেন। গরীব মারার বাজেট। এবারের বাজেটে জনগণের আশা-আকাঙ্খার প্রতিফলন নেই!

আমরা সব কিছু কেমন করে দেখছি?

এইসব নিয়ে আমরা মতামত দিতে পারি। আসুন আমারা শেয়ার করি আমাদের চিন্তা ধারা। তবে একটি অনুরোধ আমরা যেন রাজনীতির খাতিরে রাজনীতিবিদদের মত কথা না বলি।

তাহলে শুরু করুন। প্রকাশ করুন আপনার মতামত।

***
( প্রিয় সঞ্চালক, আপনারা যদি মনে করেন বাজেট নিয়ে একটি আলোচনা আমরা বিডি নিউজ এর সকল পাঠক, পাঠিকা, ব্লগার সবাই আমদের ভাবনা, মতামত শেয়ার করি তবে একটি লাইভ অনুষ্ঠানের ব্যাবস্থা করার
বিনীত অনুরোধ রইল।

***
[ সকল তথ্য বিডি নিউজ ২৪ এর ]