ক্যাটেগরিঃ ইতিহাস-ঐতিহ্য

 

পলাতক আমি বহু জনপদ ঘুরে
আবার এলাম তোমার কাছে ফিরে।

সময় এর কাছ থেকে পালন যায় কি? আমার মনে হয় না। সময় ঠিক ধাওয়া করবেই। কোন ভাবে পালানোর পথ থাকলেও আমাদের সেই পথ যানা নেই। আমরা আমাদের অতীতে ফিরে যেতে পারি ততখানি, যতো খানি সময় থেকে আমরা জন্মেছি, বুঝতে শিখেছি। জন্মের আগের ইতিহাস, ঐতিহ্য সম্পর্কে জানতে হলে, তথ্য এর জন্য আমাদের নির্ভর করতে হয় অনেক পুস্তক এর উপর। আর কিছু জাদুঘরে সংরক্ষিত করে রাখা হয় ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য। তা ছাড়া ও টেলিভিশন কিংবা অতীতের ভিডিও ফুটেজ থেকে জানতে পারি অনেক কিছু।

পাঠক আজ আমি আপনাদের কিছু দুর্লভ, ঐতিহাসিক, আমাদের বাংলাদেশের প্রায় ১৫০ বছর আগের কিছু ছবি শেয়ার করতে চাচ্ছি। ২ টি ছবি আমি ইতিমধ্যেই পোস্ট করেছি। এই নিয়ে অনেকের আগ্রহ আমাকে মুগ্ধ করেছে। আমার ২ বন্ধু ব্লগার ও সমালোচক নাহুয়াল মিথ, শনিবারের চিঠি- এরা বেশী আগ্রহ দেখিয়েছে । যাই হোক সবার জন্যই পোস্ট করলাম।

এইখানে একটি বিষয় আগে থেকে জানাই। ছবি গুলী “ ব্রিটিশ লাইব্রেরী” থেকে সংগৃহীত। (Fritz Kapp ) ফ্রিটস কাপ ও ফেড্রিক ফাইবিশ(Frederick Fiebig) নামের ২ ফটোগ্রাফার এই ছবি গুলী তুলেছিলেন বলে জানা যায়। প্রাথমিক ভাবে আর কোন তথ্য আমার আর জানা নেই। কারো কাছে যানা থাকলে পোস্ট করে এই পোস্টকে আরও তথ্য বহুল করে তুলবেন। এটাই আমার বিশ্বাস। আর তবেই আমার সারা রাতের পরিশ্রম সার্থক হবে বলে আমার বিশ্বাস। সবাই ভাল থাকুন, অনেক ভাল। কদম ফুলের শুভেচ্ছা সবাইকে।

১৮৬০ সালের আমদের এক পূর্ব পুরুষ!



আমাদের গ্রাম বাংলার ছবি। কেমন ছিল সেই সময়? ১৮৬০ এর তোলা এটি।

১৮৭২ সালের ঢাকা কলেজ।

কুষ্টিয়ার বিখ্যাত গড়াই নদী......... ১৮৬০ সালের।

আমদের পূর্ব পুরুষ, মহিলা, আমাদের দাদির দাদির দাদি। ১৮৬০ এর ছবি এটি।

১৮৬০ সালের আমদের পূর্ব বাংলার মা ও মেয়েরা।

১৮৮০ এর বুড়িগঙ্গা

১৮৮৫ এর চক বাযার

১৯০৪ এর চকবাযার, পাশে দেখুন টম টম। কি সুন্দর

ধোলাই খাল ব্রিজ, যেইটি লোহার পুল বলে সবাই যানি। ১৯০৪ এর ছবি এটি

১৯০৪ এর ধাকেরশরি মন্দির

১৯০৪ এর ঢাকা কলেজ।

১৮৭২ এর লাল বাগ কেল্লা ।পাশে ২ লোক দেখা যায়।

১৮৬০ এর পদ্মা নদী!

পুরানা পল্টন ১৮৭৫। হায় রে ঢাকা ছিটি! এখন কি দেখি!

নবাব পার্ক ১৮৭৫

১৮৭২ সালের ঢাকার কোন এক রাস্তা। মনে হয় একটি গ্রাম! আর এখন কার ঢাকার রাস্তা!

টঙ্গির তুরাগ নদীর উপর টঙ্গি ব্রিজ ১৮৮৫

রমনা গেট ১৯০১। বর্তমানে এই খানে দোয়েল চত্তর। প্রতি শুক্রবার এর আড্ডা জমাই এই টি এস ছি আর দোয়েল চত্তরে।

১৯০৪ এর পরি বিবির মাজার!

নেশার একমাত্র বস্তু ছিল আফিম। সেই আফিম সেবন করছেন একদল আফিম খোর। ১৮৬০ সালে এটি। তখন কি ইয়াবা, হেরইন ছিল?

আমাদের এখনকার কৃষাণি বালিকার সাথে কি মিল খায় ১৮৬০ সালের এই কৃষাণি বালিকাটি। হাঁতে কাঠের চুরি। সেলাই ছাড়া কাপড়!

পাঠক, কি, কিছুটা সময় এর জন্য হলেও কি আপনাদের আমি কি নিতে পেরেছি একটু অতীতে? কেমন ছিল সেই সব দিন? আর আজ আমরা কেমন দিনের মধ্যে জীবন কাটাই? দিন বদলায়, সময় ছুটে চলেছে তার আপন গতিতে! কেমন লাগলো আপনাদের। ফিডব্যাক পাবার আশায় রইলাম।

ভালবাসার পদ্ম ফুটুক দুঃখ দীঘির জ্বলে
ভাল থাকুন, খুব ভাল, সেই কামনায় বিদায়।