ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

আবারো বিকৃত জন্মদিন পালন করলেন খালেদা জিয়া। জন্মদিন উপলক্ষে সোমবারের প্রথম প্রহরে গুলশানে দলীয় কার্যালয়ে ৬৭ পাউন্ড ওজনের ৪টি কেক কাটেন খালেদা। কেক কাটার সময় নেতা-কর্মীরা-

শুভ শুভ শুভদিন, খালেদা জিয়ার জন্মদিন’, খালেদা জিয়া এগিয়ে চলো, আমরা আছি তোমার সাথে

– ইত্যাদি বলে স্লোগান দিতে থাকেন।

লাজ লজ্জা, বিবেক বোধহীন আর নিচু মানসিকতা সম্পন্ন এই নেত্রীর জন্মদিন আসলে কবে? সত্যকে চাপা দিয়ে মিথ্যা কে সত্য বানিয়ে বাঙালীর শোকের দিনে এবারও আনন্দ-উৎসবে বিরোধীদলীয় নেত্রী খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন করলেন বিএনপি। পরীৰার সার্টিফিকেট, কাবিননামা, প্রধানমন্ত্রীর জীবনবৃত্তান্ত দেয়া জন্ম তারিখের ভিন্নতা থাকায় খালেদা জিয়ার আসল জন্মদিনের তারিখ কোনটি। এ নিয়ে ধূম্রজাল থাকলেও স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মতো বিভীষিকাময় ইতিহাসের এক ভয়ঙ্কর শোকের দিনে শত অনুরোধ-দাবি উপেক্ষা করে ৬৭ পাউন্ড ওজনের কেক কেটে আনন্দ-উৎসবে বিএনপি আজ তাদের নেত্রী খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন করেছেন।

জাতীয় শোক দিবসে বিরোধীদলীয় নেত্রীর জন্মদিন পালন নিয়ে বেশ কিছু বছর ধরেই আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে রাজনৈতিক অঙ্গনে। আওয়ামী লীগসহ মুক্তিযুদ্ধের অজস্র সংগঠন নানা কর্মসূচীর মাধ্যমে ১৫ আগস্ট বাঙালী জাতির সব হারানোর দিনে কথিত জন্মদিনের উৎসব পালন থেকে বিরত থাকার জন্য বিরোধীদলীয় নেত্রীর প্রতি অনুরোধও জানানো হয়েছে। এমনকি গতবার খোদ বিএনপিরই এক সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক সংসদ সদস্য মেজর (অব) আখতারম্নজ্জামানও বিবৃতি দিয়ে ১৫ আগস্টে জন্মদিন পালন না করার আহ্বান জানিয়েছেন বিরোধীদলীয় নেত্রীকে। তিনি ১৫ আগস্ট জন্মদিন পালনকে অশালীন, অসৌজন্যমূলক বলে অভিহিত করেছিলেন। দল ও দেশের বৃহত্তর স্বার্থে এখন থেকে ১৫ আগস্ট তথাকথিত জন্মদিন পালন থেকে বিরত থাকার জন্য খালেদা জিয়ার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছিলেন তিনি।

দিকে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার জন্মদিন আসলে কোনটি? খালেদা জিয়ার ম্যাট্রিকুলেশনের সার্টিফিকেটসহ নানা সময়ে দেয়া জন্ম তারিখের বিবরণ তুলে ধরা হয়েছে, যা আগেও বিভিন্ন সংগঠনের পৰ থেকে প্রকাশ করা হয়েছিল। ওই লিফলেটে দেয়া তথ্য মতে, বিরোধীদলীয় নেত্রী খালেদা জিয়ার জন্ম তারিখ ১৫ আগস্ট নয়। ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিৰা বোর্ড প্রদত্ত ১৯৬১ সালে দিনাজপুর সদর গার্লস স্কুল থেকে দেয়া ম্যাট্রিকুলেশন পরীৰার সার্টিফিকেট অনুযায়ী খালেদা জিয়ার জন্ম ১৯৪৬ সালের ৫ সেপ্টেম্বর।

তাতে আরও উল্লেখ রয়েছে, সাবেক রাষ্ট্রপতি মরহুম জিয়াউর রহমানের সঙ্গে বিবাহের কাবিননামাতেও খালেদা জিয়ার জন্ম তারিখ ৫ সেপ্টেম্বর। পরবর্তীতে ১৯৯১ সালে খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী হলে সরকারী বার্তা সংস্থা ‘বাসস’ তাঁর জীবনবৃত্তানত্দ প্রচার করেছিল। তাতে খালেদা জিয়ার জন্ম তারিখ উলেস্নখ করা হয় ১৯৪৭ সালের ১৯ আগস্ট। পরবতর্ীতে আবারও প্রধানমন্ত্রী হলে তাঁর এক প্রেস সেক্রেটারি দৈনিক বাংলায় এক নিবন্ধে নতুন তথ্য দেন যে, খালেদা জিয়ার জন্মদিন ১৫ আগস্ট। সেই থেকে বিএনপি এই জাতীয় শোকের দিনে ঘটা করে খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন করছে।

আসুন দেখি খালেদার জন্ম কয়টি?







আরও দেখুন-

বি এন পির একটি ওয়েব সাইডে তার জন্মদিন কত তারিখ উল্লেখ করা হয়েছে?

আমার লেখা আরও একটি আর্টিকেল খালেদার জন্মদিন কবে?

এইবার পাঠক আপনারাই বলুন উনার(খালেদা জিয়া) জন্মদিন আসলে কবে?