ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

আমি গভীর আগ্রহ নিয়ে এ.টি.এন ও এ.টি.এন নিউজ দেখতাম । আসলে আমার মত অনেক মানুষ ই এই ২টি টিভি চ্যানেল দেখতাম এবং আমাদের সহজাত বিশ্বাসে এর পরিবেশিত খবর বিশ্বাস করতাম । বিগত কয়েকদিনে ঘটে যাওয়া কিছু ঘটনা পরম্পরা অনেকের মত আমাকেও নাড়িয়ে দিয়েছে…… । চ্যানেল দুটির কর্ণধার মাহফুজুর রহমান । এই ব্যক্তির বিগত জীবন পর্যালোচনা করলে আমাদের শংকিত হবার কারন আছে বৈকি । এমন একজন বোধহীন মানুষের হাতে একটি গনমাধ্যম । নাপিতের হাতের ছুরি…… চুল-দাঁড়ি কাটে ; কিন্তু দূর্বৃত্তদের হাতের ছুরি…… গলা কাটে । আমাদের দেশের একটি গৃহস্থ-সংস্কৃতি হল মৃত মানুষের সম্পর্কে আমরা খারাপ কথা বলি না এবং শুনতে চাইনা । সাগর-রুনি মানুষ হিসেবে যে প্রকারেই হোক না কেন…… তা তাদের একান্ত ব্যক্তিগত এবং গত জীবনের । তাই বলে এই দোহাই দিয়ে….. তাদের হত্যাকাণ্ডকে গুরুত্ব হীন করার চেষ্টা একান্তই বিকৃত রুচি । জনাব মাহফুজ…. আপনি তো জানতেন…

তারা খারাপ । তারপর ও কেনো তাদের চাকরিতে রেখেছেন ? ভন্ডামির একটি সীমা থাকা উচিৎ ।

যাই হোক আমার হাতে রাজদণ্ড এবং বিচার দণ্ডের কোনটাই নেই । আমি ব্যক্তিগত ভাবে যা করবো…. এমন ক্ষয়-কাশ আক্রান্ত একজন মানুষের হাতে যে মিডিয়া তা দেখবো না । এটি্এন ও এটিএন নিউজ বর্জন করবো । আর এতকিছুর পরেও যেসব সাংবাদিক ঐ দুটি প্রচার মাধ্যমে কাজ করবেন ….. তাদের সম্বন্ধে আমার আগের সমীহ-বোধ হয়তো ধরে রাখতে পারবো না । মাফ করবেন । আমি নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখবো ।