ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

নিরীহ “আমপাব্লিক” হইলো সব ছাগলের বাচ্চা…আজরাইলের ভূমিকায় রাজনৈতিক হায়েনারা! আপসোস দুর্ভাগা এদেশে জন্ম আমাদের মত নিরীহ আমপাবলিকের! বিশ্বজিত দাসের করুন মৃত্যর ছবি যখন চোখে ভেসে উঠে তখন এদেশের কোটি কোটি নিরীহ জনতার একজন হিসাবে নিজেকে খুব অসহায় এবং অনিরাপদ মনে হয়।

৮ ঘন্টার সড়ক অবরোধে ভাংচুর, জ্বালাও-পোড়াও আর ৪টি জীবন্ত মানুষ পরিনত হলো লাশে। রাজনৈতিক বলি হলো পথচারী বিশ্বজিত দাস। জীবন বাঁচাতে মরণপণ দৌড়েও রক্ষা পাননি বিশ্বজিৎ দাস। কি করুন মৃত্য !!! কাল থেকে বিশ্বজিত দাসের করুন মৃত্যর ছবি যখন চোখে ভেসে উঠে তখন এদেশের কোটি কোটি নিরীহ জনতার একজন হিসাবে নিজেকে খুব অসহায় এবং অনিরাপদ মনে হয়।

আগামীকাল আবার হরতাল! বাংলাদেশের রাজনীতিতে হরতাল মোটেও সুখকর কিছু নয়। যারা হরতাল ডাকে তারা বলে থাকে, “গাড়ীর চাকা ঘুরবে না, দোকান-পাট খুলবেনা।” আরেকদল বলে ‘অবৈধ হরতাল’ মানি না। হরতাল পালন আর ঠেকানোকে কেন্দ্র করে চলে ভাংচুর আর জ্বালাও-পোড়াও, আর কোপাকুপি’র সঙ্ঘর্ষ। রাজনৈতিক নেতা-কর্মীর পাশাপাশি চলে নিরীহ আম-পাবলিক নিধন।

আগামীকালে আবার কি ঘটে এবং কত জীবন্ত মানুষ আবার লাশে পরিনত হ্য়; কত ‘বিশ্বজিত দাস’ আবার চাপাতির কোপে রাজনৈতিক বলি হয়- তা ভেবে নিজেই এখন আতংকিত!

গতকাল নিরীহ বিশ্বজিৎ দাসের কি দোষ ছিল? এতটুকু দোষই তো কেন সে রাজপথে এসেছিল? তাহলে কি ক্ষমতালোভী রাজনৈতিক দলগুলির কর্মসূচী চলাকালীন সময়ে এ দেশে নিরীহ জনগনের রাজপথে চলার কোনো অধিকার নেই?

সাধারণ এবং নিরীহ আমPublic হইলো সব ছাগলের বাচ্চা, তাদের জীবনের কোনো মূল্য নাই! হাসিনা-খালেদা-এরশাদ-নিজামীগং এবং তাদের চেলা-চামু্ন্ডাদের হাতে ১৬ কোটি মানুষ আজ জিম্মি ! রাজনৈতিক খেলায় ৪ জন নয় একদিনে ৪০০ লোক মারা গেলেও হাসিনা-খালেদা-এরশাদ-নিজামীগং এবং তাদের By-productদের কিছুই আসে যায় না! কারন তারা জানে লাশের উপর দিয়ে কিভাবে ক্ষমতায় যেতে হয়!

ধিক আমাদের এই বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে এবং তাদের অপ-রাজনীতিকে……শতবার ধিক…!!!