ক্যাটেগরিঃ ভ্রমণ

 

দাউদকান্দি ও মেঘনা সেতু মেরামতের জন্য সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ। ১৫ দিন ধরে কুমিল্লায়, ঢাকা আসা জরুরী! কুমিল্লা, চিটাগাং ও নোয়াখালী অঞ্চলের সকল যানবাহন বিবাড়িয়া, ভৈরব এবং নরসিংদী হয়ে ঢাকায় আসছে! লম্বা জার্নি, তাছাড়া যানজট তো আছে! সময় লেগে যায় অনেক, বোরিংও লাগে! তাই আজ ভাবলাম, যা করে আল্লাহ ভেংগে ভেংগে দাউদকান্দি হয়েই ঢাকা যাই!
ভোর ছ’টায় সিএনজি নিয়ে সোজা চলে এলাম দাউদকান্দি। অনেকক্ষণ হেটে ব্রিজের নীচে এসে ট্রলারে উঠলাম। ১০০ জন যাত্রী নিয়ে ঘন কুয়াশায় ট্রলার ছুটলো পশ্চিম পাড়ের উদ্দেশ্যে, হেলে দুলে চলছে ট্রলার! ঘন কুয়াশার কারনে চালক পুরোপুরি সামনে চলার পথ যেন ঠিকমত খুজে পাচ্ছিল না! দু’বার অল্পের জন্য অন্য নৌযানের সাথে ধাক্কা লাগেনি! খোলা ট্রলারে সব যাত্রী তো ভয়ে যেন কাঁপতে শুরু করেছে! আমি মনে মনে আল্লাহকে ডাকছিলাম সমুহ বিপদ থেকে রক্ষা পাবার জন্য! যাক অপর পাড়ে এসে আবারও সিএনজি করে মেঘনা ঘাঠে আসলাম। ততক্ষনে পেটে দারুন ক্ষিদা! ঘাটের রেস্টুরেন্ট গুলোতে বেজায় ভিড়! কোনমতে এক রেস্টুরেন্টের বাইরে চুলার কাছে এক টেবিলে বসে নাস্তা সেরে আবারো ট্রলারে উঠলাম।

এবার আর তেমন অসুবিদা হয়নি, কারন ততক্ষনে কুয়াশা অনেকটা কেটে গেছে! অপর পাড়ে এসে এবার বাস পেলাম! কাঁচপুর ব্রিজ পেরিয়ে বাসের পিছনের একটি চাকা গেল নস্ট হয়ে! আধ ঘন্টা পর চাকা পাল্টানো শেষে বাস আবারো ছুটে চলল ঢাকার উদ্দেশ্যে, অবশেষে চার ঘ্ন্টায় গুলিস্তানে দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বাস থেকে নেমে শেষ করলাম আমার জীবনের কুমিল্লা টু ঢাকার ১০০ কি.মি’র এক স্মরণীয় জার্নি!