ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

 

কাদের মোল্লার ফাঁসির দাবিতে গত ৫ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার বিকেল থেকে শাহবাগ মোড়ে যে আন্দোলন শুরু হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সেই আন্দোলন অস্টম দিন পার করেছে। টানা আট দিন রাজপথে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ সমবেত হয়েছে। শাহবাগ সেজেছে নতুন সাজে। স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ নানা বয়সের মানুষের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে। সবারই এক দাবী, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার। সমাবেশ চত্বরে শোনা যায় নানা ধরণের স্লোগান। এরমধ্যে একটি স্লোগান দৃষ্টি কেড়েছে। ‘দশ টাকায় রাজাকারের ফাঁসি’। এ স্লোগান শোনা গেছে, ফেরিওয়ালাদের কাছে। এমনই একজন ফেরিওয়ালা ইকবাল হোসেন। তিনি পেশায় একজন রাজমিস্ত্রি। বাড়ি কুমিল্লায়। তিনি শাহবাগে এসেছেন যুদ্ধাপরাধের বিচারের দাবীতে। কিন্তু আয় বন্ধ না করে, তিনি পতাকা এবং ব্যান্ড বিক্রি করছেন। ব্যান্ডে লেখা আছে, যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি চাই। ওই ব্যান্ড বিক্রির জন্য তারা স্লোগান দিচ্ছেন দশ টাকায় রাজাকারের ফাঁসি। অনেকেই তার স্লোগান শুনে ব্যান্ড কিনছেন। ইকবাল জানান, গতকাল সারা দিনে প্রায় দুই হাজার টাকার বিকিকিনি হয়েছে। এর মধ্যে হাজার খানেক টাকা মুনাফা হবে।

ফরিদপুরের গার্মেন্ট কর্মী আল আমীন শাহবাগে এসেছেন,রাজাকারের ফাঁসির দাবীতে। তিনিও পতাকা ও ব্যান্ড বিক্রি করছেন। তিনি বলেন, দিনে নয়, সন্ধ্যার পর তিনি শাহবাগে পতাকা বিক্রি করছেন। তিনি জানান, গার্মেন্টসে কাজ নাই। তাই বিচারের দাবী এসে পতাকা বিক্রি করছেন। এতে একসঙ্গে দুই কাজই হচ্ছে।

হবিগঞ্জের কফি বিক্রেতা আতিক হাসান বলেন, সারা বছর বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় কফি বিক্রি করি। কিন্তু রাজাকারের ফাঁসির দাবী আমারও। এজন্য আমি রাজাকারের ফাঁসির দাবী সম্মলিত ব্যান্ড বিক্রি করছি। তিনিও জানান, সারা দিনে দু’হজার টাকার বেশি বিক্রি করেছেন। বিক্রমপুরের দর্জি জাকির হোসেন বলেন, মনের আনন্দেই রাজাকারের ফাঁসির দাবী নিয়ে লেখা ব্যান্ড বিক্রি করছি। এতে আয় হচ্ছে, আবার বিক্রি করে লাভও হচ্ছে।