ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

 

বাংলাদেশ স্বাধীনতার পর পরই আমাদের দেশের একশ্রেনীর পরজীবি দেশের সকল দলমত নির্বিশেষে জাতীয় ঐক্যের বিরুদ্ধে ক্রমাগত ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে , জাতীয় ঐক্যমত্য যেন তাদের ধাচে সয় না। অনৈক্যর ভিতর যেন তাদের স্বার্থ বা তাদের পছন্দসহ কোন মহলের স্বার্থ লুকায়িত আছে। স্বাধীনতার পক্ষে বিপক্ষে ধোয়া তুলে জাতিকে বিভাজিত করে রাখা হয়েছে সাম্রাজ্যবাদী ও আধিপত্যবাদী শক্তির ক্রীড়নক হিসেবে।

উদাহরন খুঁজতে আমাদেরকে দূরের কোন মহাদেশে যাওয়ার দরকার নাই, এই এশিয়া মহাদেশেরই রাষ্ট্র ভিয়েতনাম ও কম্বোডিয়া আগ্রাসী মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের সামরিক ধ্বংসযজ্ঞকে রুখে দিয়ে একযুগ ও তদুর্ধ সময়ের রক্তাক্ত যুদ্ধ শেষে দেশ পরাধীনতা মুক্ত করেছিল। তারা সব বিভাজন ভুলে দেশ গড়ার মহতি সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ে প্রবৃদ্ধির সমতালে এগিয়ে যাচ্ছে। এশিয়ার ইমাজিং টাইগার এ ভুষিত হয়েছেন তারা। ব্যাতিক্রম শুধু বাংলাদেশ , একশ্রেনীর পত্রপত্রিকা মিডিয়া ও বুদ্ধিজীবী লেখকের এক বিশাল অংশ বিভেদের এ বীজ রোপন করেই চলেছেন। তারা আসলে কি চায় , নিজেরা জানে কিনা সন্দেহ আছে । মংগলের চাওয়া আর অমঙ্গলের চাওয়া তো আর এক জিনিস না, সুতরাং অমঙ্গলের চাওয়াই হল বিভাজন সৃষ্টির বুদ্ধিজীবী বা বুদ্ধির এজেন্টদের কাজ। আসুন আমরা সকল বিভেদ ভুলে দেশ গড়ার জন্য ,দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য একতাবদ্ধ হয়ে কাজ করি , জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলি তাতে সকলেই সুফল পাইবে।