ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

মহাজোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে অন্যান্ন মন্ত্রি ও নেতারা বিশ্বের গুনি মহারথীদের সাথে বিভিন্ন ইসু নিয়ে এমন লেজে গোবরে পাকিয়েছে যে এখন সেটা সামাল দেওয়া সরকারের জন্য অনেক কঠিন হয়ে পড়েছে। হিলারির ঝটিকা ঢাকা সফরের ফলে বাংলাদেশ সরকারের ও যুক্তরাষ্ট্রর মধ্যে অংশদারিত্বের চুক্তি করেন।

আনুষ্ঠানিক বৈঠকে হিলারি বলে গেলেন গ্রামীন ব্যাংক তাদের দৃষ্টিতে ও দুনিয়াবাসির দৃষ্টিতে একটি আদর্শ প্রতিষ্ঠান, সরকার যেন কোন ডিক্রির মাধ্যমে এই স্বায়ত্তশাসিত ব্যাংকের কর্মকাণ্ডকে ব্যাহত না করে। কোন সরকারি মন্ত্রীরা হিলারির সামনে মুখ না খুললেও পরবর্তীতে অর্থমন্ত্রী হুংকার দিয়ে বলে উঠলেন , হিলারির এই বক্তব্য গ্রহনযোগ্য নয়।

হিলারির এই বক্তব্যর কূটনৈতিক পত্রালাপ এর মাধ্যমে এই বিষয়ের সমাধান না করে ,দেশের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের সাথে যেমন আচরনে অভ্যস্ত মন্ত্রীরা , তেমন আচরনে সবকিছু গুবলেট করে দিলেন
দির্ঘ ১০ মাস ধরে মনকষাকষির পর ৩০শে জুন বিশ্বব্যাংক, পদ্মা সেতুর ঋনচুক্তি বাতিল করেছে ,পর বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী বিশ্ব ব্যাংকের কঠোর সমালোচনা করে বলেছিলেন , বিশ্ব ব্যাংকের আচরন অগ্রহণযোগ্য ও কূটনৈতিক সদাচার বহির্ভূত। তিনি আরো বলেছেন বিশ্বব্যাংক কোন সদস্য দেশ সম্পর্কে এমন বিবৃতি দিতে পারে কিনা সে ব্যাপারে ওনার সন্দেহ আছে। এরপর তিনি বললেন এই মন্তব্য বিশ্বব্যাংকের বিদায়ি সভাপতির নিজস্ব বক্তব্য । ঠিক তার পরদিন নতুন সভাপতিও বললেন পুরাতন সভাপতির সুরে। অর্থমন্ত্রী মুহিত সাহেব বললেন বিশ্বব্যাংক মিথ্যুক , পদ্মা সেতুতে তারা আজও কোন টাকা দেয়নি, সুতরাং দুর্নিতির প্রশ্নই উঠে না। বিশ্বব্যাংকের নতুন সভাপতি বললেন বাংলাদেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মংগলের বিষয়ে তারা সজাগ , তবে বিশ্বব্যাংক কখনো দুর্নীতি সহ্য করেনা। এই বক্তব্যর পরেও মহাজোটের মন্ত্রীদের গলাবাজি আর পাল্টাপাল্টি দোষারোপ বন্ধ না করে, উল্টো বিশ্বব্যাংককেই দুর্নীতিবাজ বলল।

বাজেট অধিবেশনের সমাপনি বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বললেন আমরা বিশ্বব্যাংক থেকে লোন নেই আবার সুদ সহ ফেরত দিই , ভিক্ষা নেই না। ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে দেশ স্বাধীন হয়েছে কারো দান খয়রাতে নয়।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন বিশ্বব্যাংক একটা ব্যাংক , জানি না এ ব্যাংকে অডিট হয় কি না , তাদের কার্যক্রম পরীক্ষা করা হয় কি না , সেখানকার টাকা-পয়সা কি হচ্ছে , তার হিসাব-নিকাশ চাওয়ার অধিকার আমাদের আছে। আমরা বিশ্বব্যাংকের অংশীদার ,তাদের হিসাব নিকাশ বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে প্রধানমন্ত্রী দাবি জানিয়েছেন।

এতদিন সরকার সমালোচনা করেছিল , দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে জামায়াত-বিএনপি সহ বিরোধী জোট ,যাদের লক্ষ যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বানচাল করা। এখন বলছেন দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্র , জার্মানি , মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র , বিশ্বব্যাংক ও এদেশের সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।