ক্যাটেগরিঃ স্বাস্থ্য

 

জন্মনিয়ন্ত্রণ করে মানবজনম কন্ট্রোল করার ইতিহাস অনেকদিনের । সেই প্রাচ্য থেকে এই আবিস্কার চলতে চলতে সুদূর বাংলাদেশের আনাচেকানাচে ছড়িয়ে পড়েছে এই পদ্ধতির ব্যাবহার । বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশ গুলিতে যেই ভাবে জনসংখ্যা ক্রমাগতভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে কোন জন্মনিয়ন্ত্রনই আর কাজে আসছেনা । উন্নয়নশীল দেশগুলিতে শিক্ষা সচেতনতা নাকি কম , জন্মনিয়ন্ত্রণ বিষয়ক প্রশিক্ষন দেওয়া হয় প্রয়োজনের তুলনায় নগন্য, বেকার সমস্যার কারনে অস্থির, এমন অনেক সমস্যা আছে যেগুলি জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতিকে বাধাগ্রস্ত করে ।

সরকার যত নিয়ন্ত্রণ গ্রহন করতে চাক না কেন আসল জন্মনিয়ন্ত্রণ কিন্তু সরকারের হাতে নয় । সরকার কি চাইলেই পারবেন যে কোন লোক একটি সন্তানও জন্ম দিতে পারবে না ? সরকারের শ্লোগান ছিল ছেলে হোক মেয়ে হোক দুটি সন্তানই যথেষ্ট, বর্তমানে সেই শ্লোগানটাকে এডিটিং করা হয়েছে সেখানে বলা হচ্ছে ছেলে হোক আর মেয়ে হোক একটি সন্তানই যথেষ্ট ।

রাষ্ট্রের জনগনের ৫টি মুল কাজকে আনজাম দেওয়া হল যেই কোন নির্বাচিত সরকারের প্রধান কাজ। যদি সেইগুলিকে চাহিদানুযায়ী পুরা করতে সরকার ব্যার্থ হয় তবে সেখানে সরকারের কতৃত্ব করার অধিকার খর্ব হয় ।

যারা বস্তিতে থাকে ,রিক্সা-ভ্যান, ঠেলাগাড়ি চালায়, দিনমজুর ইত্যাদি যেই পেশাগুলি আছে তাদের তো নুন আনতে পানতা ফুরায় । একবেলা খেয়ে থাকে তো আর একবেলা উপোস থাকা লাগে । সরকার তাদের কাছে তো জন্মনিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে যেতেও পারেনা। যদিওবা যায় কার্যকারী কোন পদক্ষেপ নিতে পারেনা । তাদের উপর কোন কতৃত্ব করার অধিকার তো রাখেনা সরকার । তাদের মৌলিক চাহিদার কিছুই তো সরকার পুরা করতে পারেনা । এটা সরকারের দোষ দিলেও পুরা ঠিক হবে না ,আমরার উন্নয়নশীল দেশ অর্থাভাবটাই আমাদের উন্নয়নের পথে প্রতিবন্ধক ।

আমরা দেখলাম আজ এক মা একসঙ্গে ৫টি সন্তান প্রসব করেছেন এবং সুস্থ আছে মা-সন্তানরা সকলে। শুধু আমাদের দেশে এমন ঘটনা একটা নয় অহরহ শুনা যায় ২টা তিনটা সন্তান হওয়ার খবর । বিশ্বের অন্যান্ন দেশেও ঘটছে এমন ঘটনা। গত কয়েক মাস আছে দেখলাম আফগানিস্থান কান্দাহার প্রদেশের এক মায়ের ৫টি সন্তান প্রসবের ঘটনা ।