ক্যাটেগরিঃ প্রবাস কথন

 

কাতারে দীর্ঘ দিন থাকার সুবাদে নানা জাতিকে খুব কাছ থেকে দেখতেছি এবং তাদের বিচিত্র সব আচার আচারণ দেখে সবসময় নিত্য নতুন অভিজ্ঞতায় নিজের তথ্যভান্ডার সমৃদ্ধ করছি । এদের মধ্যে অবাক করা একটা জাতি হল ভারতের কেরালা । এরা শিক্ষা, ব্যবসা আর ভাষায় অন্য সব ভারতীয় থেকে তুলনা মূলকভাবে আলাদা একটা সত্তা । এদের ভাষা শুনতে তেমন শ্রুতি মধুর না , অনেকটা টিনের কোটায় মারবেল ডুকিয়ে নাড়াছাড়া করলে যেমন শুনায় , সেরকমই মনে হতে পারে । তবে এরা খুবই শিক্ষিত , চালাক এবং ব্যাবসায় পুরাপুরি ওস্তাদ বলা চলে । দুনিয়ার যেখানে রেস্টুরেন্ট আছে সেখানে কেরালা আছে একথা বেশিরভাগ ভারতীয়রা বলে । তবে এদের একতা চোখে পড়ার মত । একবার কাতারি এক পুলিশের কাছে শুনি ২৩০ জন বাঙ্গালিকে ৩ জন কেরালা পিটাইছে । ব্যাপারটা প্রথম বিশ্বাস না হওয়ায় জানতে আগ্রহ জাগে । পরে তার কাছে জানতে পারি বাথরুমে যাওয়া নিয়ে একজন বাঙ্গালিকে ৩ জন কেরালা পিটাইছে আর ২২৯ জন বাঙ্গালী চেয়ে চেয়ে তামাশা দেখেছে । বুঝতে দেরী হল না যে বাঙ্গালীর একতা কত দুর্বল ।

এখানে সরকারি-বেসরকারি অফিস আদালতের ৮০% পদ কেরালাদের দখলে । তবে ওরা কাজে খুবই দক্ষ । একবার টেলিফোন বিল নিয়ে সমস্যায় পড়ে ওদের অফিসে গিয়ে এক কেরালা মহিলার সাথে দেখা করি । তার ব্যাবহার দেখে যতটা না ভাল লেগেছে তার চেয়ে বেশি অবাক হয়েছি তার হাতে আরবি লেখা দেখে । আমি তাকে জিজ্ঞেস করলাম আপনি তো খ্রিষ্টান আরবি কোথায় শিখলেন , উনি বললেন কেরালায় । মনে মনে ভাবলাম আমাদের দেশে ইংরেজি নিয়ে যত চর্চা, আরবি নিয়ে যদি কিছু থাকিত তাহলে আজ মধ্যপাচ্যে আমরা বাঙ্গালিরা শ্রমিক না হয়ে অফিসে বসে ভাল বেতনে কাজ করতে পারতাম ।

যখন নতুন এসেছি, কেরালা দোকান থেকে রুটি কিনতাম । একদিন সকাল বেলা দোকানে গিয়ে জিজ্ঞেস করি তোমার দোকানে রুটি আছে ? সে কিছু না বলে মাথাটা ডানে-বামে নাড়ে আমি বুজে নিলাম নাই । দোকান থেকে বের হওয়ার পথে দেখি অন্য এক লোক রুটি নিয়ে বের হচ্ছে , আমি আর দেরী না করে সাথে সাথে ওকে বললাম আমাকে রুটি দিলে না কেন ? সে আর কিছু না বলে একটা রুটির পেকেট হাতে তুলে দিল । আমি রাগের সহিত একটা রিয়াল দিয়ে বাসায় চলে এলাম । এসে সোজাসুজি দুলাভাইকে পুরা ঘটানাটা বললাম । দুলাভাই হেসে দিয়ে বলল , তুমি ঢাকা শহরের রাস্তার সিগন্যাল দেখে কেমনে বুঝবে লাল বাতিতে গাড়ি চলে নাকি সবুজে । আসল ব্যাপারটা হল আমরা মাথা ডানে-বামে নেড়ে না সিগন্যাল দিলেও কেরালাদের ক্ষেত্রে সেটা ১০০% হাঁ সিগন্যাল ।