ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

অনেক সাধারণ জনগণ জিনের বাদশাদের কলে সর্বশান্ত হয়েছেন। কিন্তু মোবাইল সিম বায়োমেট্রিক নিবন্ধনের পর থেকে জিনের বাদশা, বাবার মাজার, শাহীবাবা, ১৫ লক্ষ টাকার গাড়ি পাচ্ছেন আরো অনেক ধরনের লালসা যুক্ত প্রতারনামূলক ফোন আসছে না। তার ফলে ধরে নিতে হচ্ছে তারা এখন নিখোঁজ।

দৈনিক এই বাংলা ও বৈশাখী নিউজের মৌলভীবাজার জেলা পর্যায়ে এক বিশেষ জরিপে এই তথ্য পাওয়া গেছে। জেলার বিভিন্ন অঞ্চলে প্রায় শতাধিক মানুষের মধ্য পরিচালিত জরিপে পাওয়া তথ্যানুযায়ী বলা যায় মোবাইল সিমের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন কার্যকর হওয়ার পর থেকে পূর্বের ন্যায় এখন আর এই ধরনের কোন প্রতারনা মূলক কল আসে না।

উল্লেখ্য যে, মোবাইল সিম বায়োমেট্রিক নিবন্ধন হওয়ার পূর্বে অনেকেই এই ধরনেের প্রতারণার শিকার হয়েছেন। কুলাউড়ারর আসরাফ সোনার কলসী পাওয়ার লোভে জিনের বাদশার কাছে এক লক্ষ ৭০ হাজার টাকা নিয়ে গিয়ে শুন্য হাতে ফিরে আসেন।

এমন আরো অনেকেই মোবাইল কলের মাধ্যমে প্রতারনার শিকার হয়ে সর্বশান্ত হয়েছেন। তাই সরকারের এই কার্যক্রমের সফলতা অনুভব করে অনেকেই সরকারকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। কিন্তু প্রতারণার এক পথ বন্ধ হওয়াতে প্রতারক মহল অন্য পথে তাদের প্রতারণা ও চাঁদাবাজি ঠিক চালিয়ে যাচ্ছে। তাই সরকারের কাছে জনগণের দাবি সকল প্রতারণাকারিদের বিরুদ্ধে বায়োমেট্রিক কার্যক্রম এর মত পদক্ষেপ গ্রহণ করে দেশবাসীকে নিরাপদ জীবন যাপনে সহায়তা করুন।

প্রতিবেদক
লেখক ও সাংবাদিক