ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

সাবধান! গান গাইবেন? খেয়াল রাখতে হবে, পাশের বাসাটি কার! যদি কোন মন্ত্রী বা এমপি বা সরকারী কোন প্রভাবশালী ব্যক্তির হয়, প্লিজ! মুখে টেপ লাগিয়ে রাখুন। নইলে খবর আছে! বিশ্বাস হচ্ছে না?

গান পাগল সাইমুম হাসান নাহিয়ানের কথাই ধরুন। পাওয়ারসার্জ এর গিটারিস্ট নাহিয়ান আর তার বন্ধুরা বাসার ছাদে গান সাধতেন! আর হাজতবাস হলো নাহিয়ানের। সকালে গ্রেফতারের পর চুরির মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। পাঠানো হয়েছে আদালতে। জামিন না হলে প্রতিভাবান এই গিটারিস্টকে চোর-বদমাশদের সাথে কাটাতে হবে কারাগারে। বিস্তারিত শুনুন।

পাওয়ারসার্জ এর গিটারিস্ট নাহিয়ানকে ১১ই সেপ্টেম্বর সকালে গ্রেফতার করে ধানমন্ডি থানা পুলিশ। তার বিরুদ্ধে আনা হয় চুরির অভিযোগ। বাদি হলেন একজন প্রভাবশালী মন্ত্রীর খালাতো ভাই। ভাই নাম জিগাইবেন না। বলতে ভয় পাই। উনারা তিস্তার পানি আনতে না পারলে কি হবে! থানার ময়লা পানি খাওয়াতে বেশ পটু!

নাহিয়ানের পরিবার আর বন্ধুরা জানান, পাওয়ারসার্জ ব্যান্ডের একটি কনসার্ট ছিলো গত ৯ই সেপ্টেম্বর। এজন্য সপ্তাহ ধরেই বাড়ির ছাদে তারা রিহার্সেল করেছেন। কিন্তু, বেরসিক প্রতিবেশীর তাতে সহ্য হবে কেনো? তাছাড়া উনি তো আবার প্রভাবশালী। ফলে যা হবার তাই হলো। দিনক্ষণ আর সবকিছু ঠিকঠাক করে দিলেন চুরির মামলা। ১১ই সেপ্টেম্বর পুলিশ ধরে নিলো তাকে।

খবর পেয়ে থানায় ছুটে যান আইয়ুব বাচ্চু, হামিন আহমেদসহ বামবা’র সদস্যরা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন জানান, থানায় গেলে তাদের সাথেও পুলিশ খারাপ ব্যবহার করে। বলা হয় “’আপনারা বা …র মিউজিক করেন , দেখি মিডিয়া কি করতে পারে”।

খবর পেয়ে নাহিয়ানের বন্ধু আফিফ সকালে যায় থানায়। তাকেও গ্রেফতার করে পুলিশ।

পাওয়ারসার্জ , ২০০৭ এর ডিজুস রকস্টার-২ এর চ্যাম্পিয়ন। একই সাথে আন্ডারগ্রাউন্ড ব্যান্ডের মধ্যে অত্যন্ত জনপ্রিয়।