ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

কলেজ,ভার্সিটির ক্যাম্পাসে বিভিন্ন দলের রাজনৈতিক সংগঠন থাকায়, রাজনৈতিক নেতাদের কাছে যারা হয় প্রাণপ্রিয়,ক্যাম্পাসে যারা নয় মেধাবী ও জনপ্রিয়, তারাই পায় নেতৃত্ব,যাদের অনেকের থাকে না ছাত্রত্ব।
তবুও তারা ছাত্রনেতা।তাদের কাছে ক্যাম্পাসে নির্যাতিত হয় সাধারন ছাত্ররা। চাঁদাবাজি,সন্ত্রাসী করে পরিবর্তন করে তাদের নিজস্ব পকেটের অবস্থা, ক্যাম্পাস এ থাকে না পড়াশুনার পরিবেশ,আর ক্যাম্পাসের হয় দুরবস্থা, আর যারা ছাত্রছাত্রীদের কাছে থাকে জনপ্রিয় তাদের হয় বেহাল অবস্থা।

আর যদি এই সকল অছাত্ররা যদি ভবিষ্যৎ এ দেশের হাল ধরে তবে এ দেশের অবস্থা হবে পুরাই লোডশেডিইং এর মতো !!! তা আপনারা সবাই ভালভাবে বুঝতেছেন।

এদেশের শিক্ষাঙ্গনে পড়াশুনার পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে হলে,তথা এদেশকে ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে নিতে হলে জনপ্রিয় ও মেধাবী ছাত্রনেতৃত্ব এর কোনো বিকল্প নেই। ছাত্রসংসদ নির্বাচন না থাকায় অনেক জনপ্রিয় ও মেধাবী ছাত্র নেতৃত্ব নিতে পারছে না,পারছে না দেশের জন্য ,জনগনের জন্য কিছু করতে।

আর এই জনপ্রিয় ও মেধাবী ছাত্রনেতৃত্ব বের করতে হলে ছাত্রসংসদ নির্বাচন ছাড়া অন্য কোন উপায় নেই। তাই প্রতিটি ক্যাম্পাস এর ছাত্রসংসদ খোলা অতি জরুরি। বাংলাদেশের লাখো ছাত্রছাত্রীদের প্রানের দাবি ভার্সিটি ,কলেজের ক্যাম্পাস এ ছাত্রসংসদ নির্বাচন দাবিটি পাস করা হোক।