ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

 

মোট ম্যাচ: ৭৩ টি
জয়: ৩ টেস্টে
ড্র: ৭ টেস্টে
পরাজয়: ৬৩ টেস্টে
১ম টেস্ট: ভারতের সাথে ২০০০ সালের নভেম্বরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে।
১ম অধিনায়ক: নাঈমুর রহমান দূর্জয়
১ম শতরানকারী: আমিনুল ইসলাম বুলবুল, ১৪৫ রান (২০০০ সালের নভেম্বরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ভারতের বিপক্ষে ১ম ইনিংসে)
১ম পাঁচ উইকেট শিকারী (ইনিংসে): নাঈমুর রহমান দূর্জয়, ((২০০০ সালের নভেম্বরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ভারতের ১ম ইনিংসে)
ম্যাচে ১ম দশ উইকেট শিকারী: এনামুল হক জুনিয়র, ২০০ রানে ১২ উইকেট। (২০০৫ সালের জানুয়ারিতে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে)
১ম টেস্ট জয়: ২২৬ রানে (২০০৫ এর জানুয়ারিতে চট্টগ্রামের এম.এ. আজিজ স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে)
১ম ড্র: জিম্বাবুয়ের সাথে ২০০১ সালের নভেম্বরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে।
১ম পরাজয়: ভারতের কাছে ৯ উইকেটে (২০০০ সালের নভেম্বরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে)
সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ: ৪৮৮/১০ (২০০৫ সালের জানুয়ারিতে চট্টগ্রামের এম.এ. আজিজ স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১ম ইনিংসে)
সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ: ৬২/১০ ১ম ইনিংসে (২০০৭ সালের জুলাইয়ে কলম্বোর পি সারাভানামুত্তু স্টেডিয়ামে শ্রীলংকার বিপক্ষে)
সবচেয়ে বেশি টেস্ট খেলা খেলোয়াড়: মোহাম্মদ আশরাফুল, ৫৭ টেস্ট।
১ম ৫০ টেস্ট খেলেছেন: হাবিবুল বাশার সুমন, ৫০ টেস্ট।

ক্যারিয়ারে সর্বাধিক রান সংগ্রাহকারী ব্যাটসম্যান: হাবিবুল বাশার সুমন, ৫০ টেস্টে ৩০২৬ রান।
সবচেয়ে বেশি ইনিংস ব্যাট করতে নেমেছেন: মোহাম্মদ আশরাফুল, ১১১ ইনিংস ৫৭ টেস্টে।
সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস: মোহাম্মদ আশরাফুল, ১৫৮। (২০০৪ সালের ডিসেম্বরে চট্টগ্রামের এম.এ. আজিজ স্টেডিয়ামে ভারতের বিপক্ষে ১ম ইনিংসে)
ব্যাটিংয়ে ক্যারিয়ার সেরা ব্যাটিং গড়: তামিম ইকবালের ৩৮.০০; ২৪ টেস্টের ৪৬ ইনিংসে ১৭৪৮ রান। (ন্যূনতম ২০ ইনিংস খেলা ব্যাটসম্যানদের মধ্যে)
ব্যাটিংয়ে ক্যারিয়ার সেরা স্ট্রাইক রেট: মাশরাফি বিন মুর্তজার ৬৭.২০ রান প্রতি শত বলের বিপরীতে; ৩৬ টেস্টে ৬৭ ইনিংসে ৭৯৭ রান। (ন্যূনতম ১০০০ বল খেলা ব্যাটসম্যানদের মধ্যে)
সর্বাধিক শতরানকারী ব্যাটসম্যান: মোহাম্মদ আশরাফুল, ৫টি।
সর্বাধিক অর্ধশতরানকারী ব্যাটসম্যান: হাবিবুল বাশার সুমন, ২৪ টি। (শতরানের হিসেব ব্যতিরেক)
ক্যারিয়ারে সর্বাধিক চার মেরেছেন: হাবিবুল বাশার সুমন, ৪০১ টি। (৫০ টেস্টে ৯৯ ইনিংসে)
ক্যারিয়ারে সর্বাধিক ছয় মেরেছেন: মোহাম্মাদ রফিক, ৩৪টি। (৩৩ টেস্টে ৬৩ ইনিংসে)
সর্বাধিক শূন্য রানে আউট হওয়া ব্যাটসম্যান: মোহাম্মদ আশরাফুল, ১৬ বার (৫৭ টেস্টে ১১১ ইনিংসে)
সর্বাধিক অপরাজিত থাকা ব্যাটসম্যান: শাহাদাত হোসেন, ১৭ বার। (৩৩ টেস্টে ৬২ ইনিংসে)
ইনিংসে সর্বোচ্চ ব্যাটিং স্ট্রাইক রেট: আব্দুর রাজ্জাকের ২৫২.৯৪, ১৭ বলে ৪৩ রানের ইনিংসে। (২০১১ সালের আগস্টে হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২য় ইনিংসে) [কমপক্ষে ২০ রানের ইনিংসগুলোর মধ্যে)
এক সিরিজে সর্বাধিক রান সংগ্রাহকারী ব্যাটসম্যান: হাবিবুল বাশার সুমন, ৩ টেস্টে ৩৭৯ রান (২০০৩ সালের আগস্টে পাকিস্তানের বিপক্ষে পাকিস্তানের মাটিতে)

ক্যারিয়ারে সর্বাধিক উইকেটশিকারী বোলার: মোহাম্মাদ রফিক, ১০০ উইকেট ৩৩ টেস্টে।
এক ইনিংসে সেরা বোলিং: সাকিব আল হাসান, ৩৭ রানে ৭ উইকেট। (২০০৮ সালের অক্টোবরে চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্টেডিয়ামে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২য় ইনিংসে)
ম্যাচ সেরা বোলিং: এনামুল হক জুনিয়র, ২০০ রানে ১২ উইকেট। (২০০৫ সালের জানুয়ারিতে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে)
ক্যারিয়ার সেরা বোলিং গড়: ইলিয়াস সানি, ২৯.৪১; ৩ টেস্টে ১২ উইকেট। (কমপক্ষে ১০ উইকেট শিকারীদের মধ্যে)
ক্যারিয়ার সেরা ইকোনমি: এনামুল হক জুনিয়র, ২.৭৬; ১০ ম্যাচে ৩৭১.৪ ওভারে। (কমপক্ষে ১০০০ বল করা বোলারদের মধ্যে)
ক্যারিয়ার সেরা স্ট্রাইকরেট (বোলিংয়ে): সাকিব আল হাসান, ৬৬.৪; ২৬ টেস্টে ১০৬৩.৩ ওভারে ৯৬ উইকেট। (কমপক্ষে ১০০০ বল করা বোলারদের মধ্যে)
সর্বাধিকবার ইনিংসে পাঁচ উইকেট শিকারী বোলার: সাকিব আল হাসান, ৯ বার ২৬ টেস্টে।
সর্বাধিকবার ম্যাচে দশ উইকেট শিকারী বোলার: এনামুল হক জুনিয়র, ১ বার ১৪ টেস্টে।
এক ইনিংসে সেরা ইকোনমি: নাঈম ইসলাম, ওভারপ্রতি ১.৩৩ রান ১২ ওভারে ১৬ রান দিয়ে (২০০৮ সালের অক্টোবরে চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্টেডিয়ামে নিউজিল্যান্ডের ২য় ইনিংসে)
এক ইনিংসে সবচেয়ে বেশী রান দেওয়া বোলার: মোহাম্মাদ রফিক, ১৮১ রান ৪৫ ওভারে। (২০০৭ সালের মে মাসে শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ভারতের বিপক্ষে ১ম ইনিংসে)
এক সিরিজে সর্বাধিক উইকেটশিকারী বোলার: এনামুল হক জুনিয়র, ১৮ টি উইকেট ২ টেস্টে। (২০০৫ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হোম সিরিজে)

সর্বাধিক ডিসমিসাল (উইকেটরক্ষক): খালেদ মাসুদ পাইলট, ৮৭ টি ৪৪ টেস্টে। (৭৮ টি ক্যাচ, ৯টি স্টাম্পিং)
এক ইনিংসে সর্বাধিক ডিসমিসাল (উইকেটরক্ষক): মুশফিকুর রাহিম, ৫টি। (২০১০ সালের জানুয়ারিতে ঢাকায় ভারতের ২য় ইনিংসে)
ম্যাচে সর্বাধিক ডিসমিসাল (উইকেটরক্ষক): খালেদ মাসুদ পাইলট, ৭টি। (২০০৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে হারারেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে)
কোন সিরিজে সর্বাধিক ডিসমিসাল (উইকেটরক্ষক): খালেদ মাসুদ পাইলট, ৮টি ২ টেস্টে। (২০০৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে হারারেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে)

ক্যারিয়ারে সর্বাধিক ক্যাচ নেওয়া খেলোয়াড়: মোহাম্মদ আশরাফুল, ২৪ টি ক্যাচ ৫৭ টেস্টের ৮৩ ইনিংসে।
এক ইনিংসে সর্বাধিক ক্যাচ নেওয়া খেলোয়াড়: আল শাহরিয়ার রোকন, আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও রাজিন সালেহ, ৩ টি করে যথাক্রমে ২০০০ সালের নভেম্বরে ঢাকায় ভারত, ২০০২ সালের জানুয়ারিতে চট্টগ্রামে পাকিস্তান ও ২০০৩ সালের আগস্টে করাচিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে।
ম্যাচে সর্বাধিক ক্যাচ নেওয়া খেলোয়াড়: রাজিন সালেহ, ৪ টি; ২০০৩ সালের আগস্টে করাচিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে।
সিরিজে সর্বাধিক ক্যাচ নেওয়া খেলোয়াড়: আমিনুল ইসলাম বুলবুল, ৪টি ২ টেস্টের ৩ ইনিংসে; ২০০২ সালের জানুয়ারিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে হোম সিরিজে।

ব্যাটিংয়ে সর্বোচ্চ রানের জুটি: তামিম ইকবাল ও জুনায়েদ সিদ্দিকী, ২০০ রান ২য় উইকেটে। (২০১০ সালের জানুয়ারিতে শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ভারতের বিপক্ষে ২য় ইনিংসে)
সবচেয়ে বেশী ম্যাচে অধিনায়কত্বের দায়িত্ব পালনকারী দলপতি: হাবিবুল বাশার সুমন, ১৮ টি টেস্ট।

পরিশিষ্ট:
১। তথ্যসূত্র: ইএসপিএন ক্রিকইনফো
২। বাংলাদেশ বনাম পাকিস্তানের মধ্যকার ডিসেম্বরের ১৭-২১ তারিখ পর্যন্ত ম্যাচের তথ্য এ পোস্টে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে।
৩। সময় স্বল্পতার কারণে বেশ কিছু পরিসংখ্যান যোগ করা যায় নি। পরিসংখ্যানে কোনরকম ত্রুটি পরিলক্ষিত হলে জানানোর জন্য অনুরোধ করা হল।

২৬ অক্টোবর, ২০১২ ইং।
মোঃ মুজিব উল্লাহ: mdmujib_ullah@yahoo.com
আমার ফেসবুক লিংক