ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

এশিয়া কাপের ২য় ম্যাচে গাম্ভীর, কোহলির জোড়া শতক এবং পাঠান ও আশ্বিনের চমৎকার বোলিংয়ের কল্যাণে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারত ৫০ রানে শ্রীলংকাকে হারিয়েছে। মিরপুরের শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে দিবা-রাত্রির এই ম্যাচে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে কোহলি, গাম্ভীরের অসাধারণ সেঞ্চুরী ও ধোনি, রায়নার দুটি ক্যামিও ইনিংসের সৌজন্যে ভারত নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৩ উইকেটের বিনিময়ে ৩০৪ রান সংগ্রহ করে। জবাবে শ্রীলংকা প্রথমদিকে জয়াবর্ধনে ও সাঙ্গাকারার হাফ সেঞ্চুরীতে ভালো সূচনা করলেও শেষের দিকে দ্রুত উইকেট হারিয়ে ৪৫.১ ওভারে হারিয়ে ২৫৪ রানের মাথায় অলআউট হয়ে যায়। উল্লেখ্য মালিঙ্গা ও ম্যাথুসকে একাদশের বাইরে রেখে লঙ্কানরা এ ম্যাচ খেলতে নামে। দুর্দান্ত শতরানের সুবাদে ভারতের বিরাট কোহলি ম্যান অব দ্যা ম্যাচ নির্বাচিত হন। আগামী ১৫ তারিখ একই মাঠে নিজেদের পববর্তী ম্যাচে পাকিস্তান ও শ্রীলংকা পরস্পরের মুখোমুখি হবে।

জয়ের জন্য ৩০৫ রানের লক্ষ্য নিয়ে খেলতে নেমে শ্রীলংকা ৩১ রানের মাথায় ইরফানের বলে ইনফর্ম দিলশানকে হারায়। এরপর জয়াবর্ধনে ও সাঙ্গাকারা দৃঢ়তার সাথে ব্যাট করতে থাকেন। ঝড়োগতির হাফসেঞ্চুরী করে জয়াবর্ধনে পাঠানের ২য় শিকারে পরিণত হলে ভারত খেলায় ফিরে আসে। জয়াবর্ধনে মাত্র ৫৯ বলে ১০ চার ও ২ ছক্কায় ৭৮ রান করার পথে ক্যারিয়ারের ৬৬ তম অর্ধশতক ও ওপেনার হিসেবে নিজের হাজার রান পূর্ণ করেন। ১৫২ রানে চান্দিমাল আশ্বিনের ১ম শিকারে পরিণত হন। তারপর সাঙ্গাকারা তরুণ থিরামানের সাথে ৪৪ রানের জুটি গড়েন। খেলার ৩৬ তম ওভারে আশ্বিন সাঙ্গাকারাকে ৬৫ ও থিরামানেকে ২৯ রানে আউট করলে লঙ্কানরা চাপে পড়ে যায়। এরপর ৩৯ তম ওভারে বিনয় কুমারের পরপর দুই বলে কুলাসেকারা ও কাপুগেডারা আউট হয়ে গেলে শ্রীলংকার জয়ের স্বপ্ন ফিকে হয়ে যায়। ৪৫.১ ওভারের সময় ইরফান প্রসন্নকে আউট করে ভারতীয় দলের বিজয় নিশ্চিত করেন। ভারতীয় বোলারদেন মধ্যে ইরফান পাঠান ৩২ রানে ৪ টি, আশ্বিন ও বিনয় কুমার যথাক্রমে ৩৯ রানে ও ৫৫ রানে ৩ টি উইকেট লাভ করেন।

ম্যাচের প্রথম ইনিংসে ভারত মাত্র ১৯ রানের মাথায় লিটল মাস্টার টেণ্ডুলকারের উইকেট হারায়। শচীন মাত্র ৬ রান করে লাকমালের ফুলটস বলে জয়াবর্ধনের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরে যান। এরপর ইনফর্ম গাম্ভীর ও কোহলি ২য় উইকেট জুটিতে ২০৫ রানের এশিয়া কাপের রেকর্ড পার্টনারশীপ গড়ে দলকে ভালো অবস্থানে নিয়ে যান। চমৎকার ব্যাটিং করে সেঞ্চুরী তুলে নেওয়ার পর কোহলি ১০৮ রানে ও গাম্ভীর ১০০ রানে একই ওভারে মাহারুফের জোড়া শিকারে পরিণত হন। ১২০ বলে ৭ টি চারের সাহায্যে কোহলি ও ১১৮ বলে ৭ টি চারের মারে গাম্ভীর এ রান সংগ্রহ করেন। উভয়েরই এটি ক্যারিয়ারের দশম সেঞ্চুরী। শেষের দিকে ৪র্থ উইকেট জুটিতে ধোনি ও রায়না অবিচ্ছিন্নভাবে মাত্র ৭.১ওভারে ৭৮ রান তুললে ভারতের স্কোর তিনশত পার হয়। ধোনি ১ ছক্কা ও ৬ টি চারের সাহায্যে মাত্র ২৬ বলে ৪৬ রানে ও রায়না ১৭ বলে ১ ছক্কায় ও ৩ চারে ২৬ রানে অপরাজিত থাকেন। লঙ্কান বোলারদের মধ্যে মাহারুফ ৫৭ রানে ২ টি ও লাকমাল ৬৭ রানে ১টি উইকেট লাভ করেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ভারত ৩০৪/৩ (৫০ ওভারে: কোহলি ১০৮, গাম্ভীর ১০০ , ধোনি ৪৬*, রায়না ৩০*; মাহারুফ ২/৫৭, লাকমাল ১/৬৭)

শ্রীলংকা ২৫৪/১০ (৪৫.১ ওভারে: জয়াবর্ধনে ৭৮, সাঙ্গাকারা ৬৫, থিরামানে ২৯; ইরফান ৪/৩২, আশ্বিন ৩/৩৯, বিনয় কুমার ৩/৫৫)

ফলাফল: ভারত ৫০ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্যা ম্যাচ: বিরাট কোহলি (ভারত)
১৩/০৩/২০১২ ইং