ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

ছোট বেলায় যখন পড়ালেখায় ফাঁকি দিতাম, স্কুল পালাতাম তখন বাবা-মা বলতেন মানুষ হতে পারবো না। আবার যখন পরীক্ষায় ভাল ফল করে বয়োজ্যেষ্ঠদের সালাম করে দোয়া নিতাম তখন তারা বলতেন দোয়া করি মানুষের মতো মানুষ হও। আবার যখন বন্ধুদের ‌’ ১০ মিনিটের মধ্যে আসছি’ বলে ২ ঘন্টা পর আসতাম, তখন ওরা বলতো তুই কি একটা মানুষ?

আসলে মানুষ ও মানবের সংজ্ঞা কি তা আমার জানা নেই। কি কি গুনাবলী ও শারীরিক গঠন থাকলে আমাকে সমাজ, রাষ্ট্র এবং নিকট জনেরা মানুষ বলবে বা মানব শ্রেণীতে গণ্য করবে তা আমার জানা নেই।

আগে মা-বাবা, শিক্ষক বা বন্ধুদের কথা থেকে বুঝতাম শুধু মানুষাকৃতি থাকলেই মানব হওয়া যায় না। মানবিক গুনাবলী থাকতে হয়।

মানব সম্পর্কে যা জানতাম তাও আজ ভুলে গেছি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কথা শুনে। তিনি বললেন, মানবাধিকার পরিস্থিতি উদ্বেগজনক নয়। এখন প্রশ্ন দেশের সর্বশেষ আদমশুমারি অনুযায়ী একটি বির্তকিত হিসেব হল দেশের জনসংখ্যা ১৪ কোটি। বক্তব্যে নেতারা বলেন ১৬ কোটি। যাই হোক জনসংখ্যা। এরা তো মানুষ। মানব শ্রেণীরই অংশ তাই না? আর তাই যদি হয় তাহলে এই ১৪ মতান্তরে ১৬ কোটি মানবের প্রত্যেক অধিকারকেই মানবাধিকার বলা যায়।

তবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী কি বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে বললেন মানবাধিকার পরিস্থিতি উদ্বেগ জন নয়। তিনি বলেছেন, ইলিয়াস আলীর গুমের ঘটনায় সরকার উদ্বিগ্ন।

তাহলে কি যাদের বনানীতে বাড়ি আছে। যারা গাড়িতে চড়ে, যাদের রাজনৈতিক দলে পদ আছে তারাই মানব। আর তাদের অধিকার ক্ষুন্ন হলেই কি মানবাধিকার ক্ষুন্ন হবে?

প্রশ্নটা অতি মানবী পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সমীপে। আজ অনলাইন পত্রিকায় সকালে প্রকাশিত হয়েছে মিরপুরে গুলি করে নয় লাখ টাকা ছিনতাই। এখানে যাকে গুলি করে টাকা ছিনতাই হয়েছে তিনি কি মানব নয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ভাষ্যমতে। সম্প্রতি সময়ের আলোচিত ঘটনা সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড। এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় কি সরকার উদ্বিগ্ন নয়। তার কিছু দিন পর ঘটলো কূটনীতিক হত্যাকাণ্ড। যা হোক তিনি বিদেশি নাগরিক অর্থ্যাৎ ফরিন মানব। তার অধিকার ক্ষুন্ন হলে দেশ কেন উদ্বিগ্ন হবে?!!!! এই ঘটনা বাদ দিলাম। আমাদের কালো বিড়ালের এপিএসের ড্রাইভারটাকে পাওয়া যাচ্ছে না। এই ঘটনায়ও কি সরকার উদ্বিগ্ন নয়?

রাস্তায় সুস্থ সবল মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হচ্ছে অপ্রশিক্ষিত চালকদের বেপরোয়া গাড়ি চালানোর জন্য। এতেও কি মানব অধিকার সমুন্নত রয়েছে?

রাস্তায় গাড়ি পুড়িয়ে নিরীহ চালককে হত্যা করা হল। এতেও কি সরকার বিচলিত নয়? এতেও কি মানবাধিকার ক্ষুন্ন হয়নি?

এখন শুধু একটা কথায় বলতে চাই কবে মানুষের মতো মানুষ হব কবে? বাবা-মা কাঙ্খিত মানুষ, শিক্ষকের কাঙ্খিত মানুষ, বন্ধুদের কাঙ্খিত মানুষ। সর্বোপরি রাষ্ট্র তথা সরকারের (পররাষ্ট্রমন্ত্রীর) কাঙ্খিত মানুষ?