ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

কেউ ভুল বলেছে? অসত্য বলেছে? ন্যায়ের বিরুদ্ধে বলেছে? আপনি বলুন! সঠিক বলুন! সত্য বলুন! ন্যায়ের সপক্ষে বলুন! আপনারওতো বাক স্বাধীনতা আছে, আছে নিজের মতামত প্রকাশ করার অধিকার| তবে মৃত্যু দিয়ে,হত্যা দিয়ে কেনো তার বিচার?
একজন ব্লগার কী করেন? নিজের মতামতকে যুক্তির দ্বারা ইলেক্ট্রনিক মাধ্যমে প্রকাশ করেন| আরতো কিছু নয়! হতেই পারে তার সাথে আপনার মতটা মিলেনি, হতেই পারে তিনি যা বলেছেন আপনার মতে তা সম্পূর্ণ অন্যায় এবং রীতিমত নীতি বহির্ভুত| তাতে কী হয়েছে? তিনি বলেছেন, আপনিও বলুন| তাকে বোঝান, যুক্তি দেখান, প্রমাণ করুন তিনি যা বলেছেন তা সত্য নয়, সঠিক নয়, ন্যায়সঙ্গত নয়|

আপনার মতে যেহেতু সে ন্যায়ের পথে নেই, সেহেতু ন্যায় বিষয়টা আপনি উপলব্ধি করতে পারেন| তাহলে নিজে সত্যের পথে দাঁড়িয়ে পথভ্রষ্ট একজনকে সত্য বুঝাতে, সঠিক পথ চেনাতে যে মননশীলতার প্রয়োজন তা যদি আপনার নাই থাকলো, আপনি তবে নিজেকে ন্যায়ের সৈনিক কেনো ভাবছেন? গুপ্ত হত্যা দিয়েই যদি সমাধান করতে হয় আপনাকে, তাহলে আপনি শুধুমাত্র সন্ত্রাসী ছাড়া অন্য কিছু হলেন কীভাবে? কেনো আপনি হত্যার অপরাধে অপরাধী নন? অবশ্য প্রশ্ন করে লাভ নেই, কারণ প্রশ্নের উত্তরই যদি দিতে পারবেন, তাহলে হত্যা কেনো?