ক্যাটেগরিঃ স্যাটায়ার

গুরুঃ ঐ যে ঐখানে বড় একটা সৌধ দেখিতেছ, ওইখানে দশজন শহীদের নাম মার্বেল পাথরে খোদাই করিয়া লিখা, তারাই একদিন আন্দোলনের মিছিলে ছিলো অগ্রসৈনিক, দিয়েছিল প্রান।

শিষ্যঃ কিন্তু, গুরু আপনি তো বলেছিলেন আপনারা শুধু পাঁচজন সেদিন মিছিলে ছিলেন, বাকিরা এলো কোত্থেকে??

গুরুঃ আস্তে, শসসস…, আমিসহ সেইদিন মাত্র পাঁচজনই ছিলাম মিছিলে, পুলিশ আসিয়া গুলি করিলে আমার সাথের চারজন তৎখনাৎ শহীদ হইয়াছিলেন, বাকি ২জন ছিলেন রিকসা ড্রাইভার, আর ৩জন পথচারী যারা সবাই পালাইতে গিয়া গুলি খাইয়া মরিয়াছিলেন, আর একজন ছিলেন রাস্তায় ট্রাফিক কন্টোল করা পাগল। তিনিও সেইদিন গুলি খাইয়া মরিয়াছিলেন। তারা সবাই শহীদ। আর তাই মোট শহীদ ১০জন…

শিষ্যঃ তাহলে গাজী মাত্র একজন, শুধু আপনি!!!
গুরুঃ না বৎস!!! ঐ ঘটনায় গাজীর সংখ্যা গত বছরই ১০০জন ছাড়াইয়া গিয়াছে, এই বছরও আরও বাড়িতে পারে। ইহা হইলো এদেশের প্রেক্ষাপটে পরিবর্তনশীল ইতিহাসের সুন্দর উদাহরন।
সবই তাহার ইচ্ছা “হক মাওলা”।
শিষ্যঃ “হক মাওলা”

(বিষয় বস্তু ঘটনা সবই কাল্পনিক)