ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

9c79c0598db8843b2c39c4743a5edd9a

গত সপ্তাহে আমার কাছে একটি ই-মেইল আসে আমেরিকার বিখ্যাত Fargo University থেকে। সেই ই-মেইলে আমাকে একটি স্কলারশিপ প্রদানের কথা বলা হয়, এবং সেই স্কলারশিপ ফাইনান্স করছেন স্বয়ং বারাক ওবামা। ই-মেইলের সাথে বারাক ওবামা কর্তৃক প্রদত্ত স্কলারশিপ ওয়েব সাইটের একটি লিংক জুড়ে দেয়া হয় বিশ্বাসযোগ্যতার জন্য। ই-মেইলে তাগাদা দেয়া হয় ২৪ঘন্টার মধ্যে তাদের সাথে যোগাযোগ করার জন্য, অন্যথায় পরবর্তী প্রতিদন্ধির কাছে এই সুযোগ চলে যাবে।
আমি অবিশ্বাসী প্রকৃতির মানুষ, সহজে কিছু বিশ্বাস করি না। তাছাড়া আমি যেখানে কোনো স্কলারশিপের জন্য আবেদনই করিনি সেখানে স্কলারশিপের জন্য মনোনীত হওয়ার প্রশ্নই আসে না। দীর্ঘ একযুগেরও বেশি সময় যাবৎ ইন্টারনেট ব্যবহার করি। কিছু টেকনিক জানা আছে যা দিয়ে সহজের জানতে পারি ই-মেইলটি আমাকে সেন্ড করা হয়েছে Cyprus, তাছাড়া গোগলে জিজ্ঞেস করে জানতে পারি Fargo University নামে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্তিত্ব নেই। আমেরিকার Fargo শহরে ঐ নামে কোনো ইউনিভার্সিটি নেই, আছে North Dakota State University যা একটি নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়।

 

আমি ই-মেইলটি delete করে দেই। ঐদিন সন্ধ্যার পর আমার কাছে Fargo University থেকে একটি ফোন আসে, এবং ইংরেজিভাষী একজন আমেরিকান একসেন্টে আমাকে স্কলারশিপটি নেয়ার জন্য অনুরোধ করেন। আমি একটু অবাক হই আমার ফোন নাম্বার তারা জানলো কিভাবে! তবে অনলাইনের এই যুগে কারো ফোন নাম্বার স্ক্যাম করে নেয়া কোনো কঠিন কাজ না। আমি বিনীতভাবে স্কলারশিপ নিতে অপারগতা প্রকাশ করি। তিনি আমায় বেশ কয়েকবার অনুরোধ করেন আমি যেনো এই সুযোগ হেলায় না হারাই। একটু ব্যস্ত ছিলাম তাই কথা না বাড়িয়ে বলি, আমি ভেবে দেখি, প্রয়োজনে আপনাদের সাথে ই-মেইলে যোগাযোগ করবো।

 

এইসব অনলাইনে ডিগ্রি প্রদানকারী ৯৯% ইউনিভার্সিটি-ই ভুয়া। তারা আপনার কর্ম অভিজ্ঞতার উপর পিএইচডি ডিগ্রি পর্যন্ত প্রদান করবে। স্কলারশিপের নামে আপনার কাছে থেকে হাতিয়ে নেবে মোটা অংকের অর্থ। ৩-৫দিনের ভিতর ডিগ্রি আপনার হাতে পৌঁছে দেবে!
এইসব স্ক্যামে অগ্রপথিক হলো Belford University যার ডিগ্রি আরব আমিরাত থেকে প্রেরণ করা হতো কিন্তু ওয়েবসাইটে আমেরিকার টেক্সাসের একটি মেইলবক্সের ঠিকানা দেয়া ছিলো। দীর্ঘদিন হাজার হাজার মানুষকে প্রতারণা করার পর ২০১২ সালে মূল প্রতারক (নাকি প্রিন্সিপাল) সালেম কোরেশী ধরা পড়ে, এবং তার বিরোদ্ধে ২২.২ মিলিয়ন ডলার প্রতারণার অভিযোগ আনা হয়। Belford University আসলে পাকিস্তানের করাচীতে সালেম কোরেশীর নিজ এপার্টমেন্ট থেকেই পরিচালিত হতো।

এইরকম শত শত ভুয়া ইউনিভার্সিটি আছে অনলাইনে। যারা স্বল্প মূল্যে সার্টিফিকেট বা ডিগ্রি বিক্রি করে। এমডি, পিএইচডি, এমবিবিএস, এমফিল, মাস্টার্স, অনার্স… যে ধরনের ডিগ্রি চাই গারান্টিসহকারে তা আপনার ঘরে পৌঁছে যাবে এক সপ্তাহের মধ্যে। অস্তিত্বহীন এইসব ইউনিভার্সিটির সবগুলোই ভুয়া। এই ধরনের ডিগ্রি বা সার্টিফিকেট নিয়ে অনেকেই পড়েছেন বড় বিপদে, খোয়া গেছে অর্থ, সম্মান। এইসব ইউনিভার্সিটি ততদিন পর্যন্ত তাদের কাজ চালিয়ে যায় যতদিন পর্যন্ত ধরা পড়ছে। ধরা পড়লেই নাম বদলে অন্য একটি প্রতিষ্ঠান খুলে বসে। এইজন্য তো জায়গা, জমি, অনুমতি, কিংবা শিক্ষকের প্রয়োজন নেই, প্রয়োজন শুধু মাত্র একটি ওয়েবসাইটের।

অনলাইনে এই ভুয়া ইউনিভার্সিটি নিয়মিত প্রতারণার লিস্টেড হচ্ছে। Wikipedia এর ভুয়া ইউনিভার্সিটির এইরকম একটি লিস্ট দেখলে রীতিমতো শিউরে উঠবেন- ভুয়া অনলাইন ইউনিভার্সিটির লিস্ট দেখতে

মনে রাখবেন, চমকপ্রদ অফারের পেছনে সবসময়ই থাকে বড় ধরনের ভাওতাবাজী, মনোমুগ্ধকর লোভনীয় ই-মেইলে পেছনে থাকে বড় ধরনের প্রতারণা। ভুলেও পা দেবেন না। দিয়েছেন তো…গেছেন।

Johns Hopkins University এর সত্যিকারের অনলাইন ফ্রি-কোর্স!
তবে নিরাশার বন্দরে আশার কথা হলো জন হপকিন্স (Johns Hopkins University) এর মত বিখ্যাত ইউনিভার্সিটিগুলো অনলাইন ক্লাস এবং ফ্রি কোর্সের ব্যবস্থা করে দিয়েছে। ৩-৬মাসে কোর্সে অনলাইনে নিয়মিতই ক্লাস/লেকচার করতে হয়। সবকিছুই ফ্রি। কোর্স শেষে একটি ছোট্ট পরীক্ষার মাধ্যমে আপনাকে একটি সার্টিফিকেট প্রদান করবে। ইচ্ছে থাকলে ঘুরে আসতে পারেন-
কিংবা

ঘরে বসেই নিতে পারেন বিশ্ব বিখ্যাত ইউনিভার্সিটির সার্টিফিকেট। তাও একদম ফ্রি!

সবাই ভালো থাকুন, সতর্ক হোন বড় ধরনের প্রতারণা/বিপদ থেকে বাঁচুন।