ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

প্রধানমন্ত্রী শহরে আসবেন তাই সাজ সাজ রব দলের নেতা পাতি নেতাদের মাঝে। সুন্দর এবং ভালো। শহরের দেয়ালে দেয়ালে পোস্টার আর ব্যানারে ব্যানারে ছেয়ে গেছে প্রতিটি রাস্তা। নেত্রী আসবেন দেখবেন এবং আশাকরি খুশিও হবেন। দুঃখের ব্যাপার হলো এই সব পোস্টার আর ব্যানারের প্রায় ৫০ভাগই কিছু চিহ্নিত সন্ত্রাসী, চোর, হাইজ্যাকার, গাড়ী চোরাকারবারি, ফেনসিডিল ব্যবসায়ী, টেন্ডারবাজ, চিহ্নিত খুনী আর ছাত্র নামের অছাত্রের। উপরে জাতির পিতার ছবি একপাশে অন্যপাশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি নিচে স্থানীয় কোনো নেতা আর সাথে এইসব অমানুষের ছবি । সিলেটে জন্ম আর এই শহরেরে স্থানীয় হওয়ায় এইসব অপরাধীকে আমি চিনি, সিলেটের বাসিন্দারা চিনেন ।

আমি আহত দৃষ্টিতে থাকিয়ে থাকি, আমার প্রান প্রিয় নেতা জাতির পিতার সাথে এইসব অমানুষদের ছবি দেখে কষ্ট পাই, ভীষন কষ্ট। এরা কেউই নেত্রীর প্রচার করছে না, নিজের প্রচার আর নিজের ফায়দা লুটার চেষ্টা করছে মাত্র । নেত্রী তো এদের চিনেন না, জানেন না, এইসব প্রচার দেখে তিনি খুশি হলেও ঘুনাক্ষরে জানবেন না এরা কারা… কার সাথে তাঁর ছবি কার সাথে জাতির পিতার ছবি।

এইসব অপরাধী কোনো দলের না, কোনো গোষ্ঠীর না … এরা নিজের স্বার্থ নিয়ে দল বদলায় আর পোশাক পাল্টায়। স্থানীয় নেতারা কি করেন বুঝি না। নেত্রী না হয় এইসব অপরাধীদের চিনেন না, কিন্তু স্থানীয় নেতারা তো চিনেন। স্থানীয় নেতা যারা নিজেদের প্রচার দেখে তৃপ্তির ঢেকুর তুলছেন তাদের কি চক্ষু লজ্জা নেই!!!! জাতীয় কোনো নেতাকে এইভাবে অমানুষদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য উপস্থাপন করার অধিকার কারো নেই, কারো নেই ।

হায় খোদা আমাদের নেতাদের সুমতি দাও, জ্ঞান দাও চক্ষু খোলে দাও, ভালো মন্দ বিচার বিবেচনা করার সামর্থ দাও ।।
(বিএনপি পন্থী আমার বন্ধুরা যারা এই লেখা পড়ে মুচকি হাসছেন তাদের বলছি এই লেখাটা তাঁদের বেলায়ও সমান ভাবে প্রযোজ্য)