ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

ঠাকুরগাঁওয়ে চতুর্থ শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষনের পরে খুন করা হয়েছে। নিখোঁজ হবার প্রায় ১৫ ঘন্টা পরে ওই ছাত্রীর লাশ রক্তাক্ত ও বিবস্ত্র অবস’ায় একটি গমক্ষেতে দেখতে পায় এলাকার লোকজন। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে। এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত রাত ৮ টা পুলিশ লাশের সুরতহাল ও তদন্ত অব্যাহত রেখেছে।

নিহত ওই স্কুল ছাত্রী ঋতু (১০) জেলার রানীশংকৈল উপজেলার মুনিষগাঁও গ্রামের আবু সৈয়দের মেয়ে। সে গাজীরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেনীতে পড়াশোনা করছিল।
এলাকার লোকজন জানান, গতরাতে ঘটনাস’লের কিছুদুরে গ্রামের মধ্যে স্থানীয় শহীদপুরির গানের আয়োজন করা হয়েছিল। এ উপলক্ষ্যে সেখানে গ্রামের কয়েকশত লোকের সমাগম ঘটে। নিহত ঋতুও সেখানে গান শুনতে যায়। এর পর থেকে সে নিখোঁজ হয়। বাড়ির লোকজন মনে করে ঋতু পাশেই তার নানার বাড়িতে আছে। কিন’ সকালেও তাকে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু হয়। বিকেল ৩ টার দিকে এলাকার লোকজন গ্রামের অদুরে একটি বাঁশ ঝাড়ের আড়ালে গমক্ষেতের মধ্যে রক্তাক্ত ও বিবস্ত্র অবস’ায় পড়ে থাকতে দেখে ঋতুকে। গ্রামের লোকজনের ধারনা ঋতুকে রাতেই ধর্ষন করে খুন করা হয়েছে। তাদের ধারনা এ ঘটনায় একাধিক জন জড়িত। তারা এ খুনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।

এ ব্যাপারে নন্দুয়ার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সুলতান আহাম্মদ জানান, এমন মর্মান্তিক ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।