ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

শ্রদ্ধেয় ব্লগার্সবৃন্দ,

শুভেচ্ছা জানবেন। সাংবাদিকতা করছি মাত্র ১০ বছর হলো। রংপুরের স্থানীয় দৈনিক দাবানল থেকে আমার হাতে খড়ি। তারপর, দৈনিক করতোয়া, দৈনিক প্রথম আলো, দৈনিক কালের কন্ঠ, ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন। জঙ্গি তৎপরতা সহ অনুসন্ধানী এবং সাধারন মানুষের জন্য বিশেষ কিছু লিখার জন্য পুরষ্কারও জুটেছে বেশ কিছু। মনে পড়ে খুব-জঙ্গি নিয়ে অনুসন্ধান, কষ্টের কথা। মনে পড়ে খুব জন্ম নেয়া বিশেষ কিছু শিশু যখন পৈত্রিক পরিচয় পায় না। পায় না তাদের নাগরিক মৌলিক অধিকার। রোগ যন্ত্রনায় হাসপাতালের মেঝেতে বিনা চিকিৎসায় কাতরাচ্ছে ৩০ বছর বয়সী নারী রোকেয়া। সে মরেছে কি না-অপেক্ষায় রয়েছে কিছু জনপ্রতিনিধি সহ স্থানীয় কিছু মানুষ। মরলেই ডাক্তারের সাথে দেনদরবার করা যাবে। এ নিয়ে প্রতিবেদন “ কখন মরবে রোকেয়া”। বৃহত্তর দিনাজপুর এলাকার মানুষের লজ্জাটা পরম ধর্ম। পেটের ক্ষুধায় মরলেও মুখ ফোটেনা ওদের। এ নিয়ে লিখা “ না খেয়ে থাকার লজ্জার কথা কি বলা যায়“। খুব মনে পড়ে, হালি বেগম (৬০) নামে এক নারী সহ ওরা পাঁচজন চৈত্র মাসের দুপুরে গম ক্ষেতের শিষ সংগ্রহ করে গাছের ছায়ায় বিশ্রাম নিচ্ছিলেন। অনেক কষ্টে তার কাছ থেকে জানলাম ছয় জনের সংসারের সবাই রাতে খাওয়া হয়নি তাদের। সকালেও না খেয়ে ওরা সবাই কাজে বেরিয়েছে। হয়তো বিকেলে অথবা রাতে খাবেন তারা। তবুও আবার হয়তো আধাপেট। রিপোর্টটির জন্য ৫ হাজার টাকা অর্থ সাহায্য পাঠিয়েছিলেন ঢাকার ফকিরাপুলের প্রেসম্যান নামক একটি প্রেসের মালিক। টাকা যখন দিতে যাই হালি বেগম সহ অন্যান্যদের-তখন জানলাম রিপোর্টটি যেদিন প্রকাশিত হয় ওই দিনই আবারও প্রখর রৌদ্রের মধ্যে গমের শিষ সংগ্রহ করতে যাওয়া হালি বেগম গম ক্ষেতেই হার্ট এটাক করে মারা যান। বড়ই কষ্টের বিষয় ছিল সেটা আমার জন্য। তখন রিপোর্টারের ভাষায় আবার লিখতে হলো “হাত পাতার লজ্জা থেকে রেহাই পেলেন হালি বেগম”।-ধন্যবাদ প্রথম আলো কর্তৃপক্ষকে। ধন্যবাদ থেকে বাদ পড়েন না কালের কন্ঠ ও ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন কর্তৃপক্ষও। রিপোর্ট ছাপিয়ে একদিকে সম্মানিত হওয়ার পাশাপাশি-মানসিক প্রশানি- এই যে, রিপোর্ট লিখে মানুষের জন্য কিছু কাজ করার সৌভাগ্যও আমার হয়েছে।
আজ ৭ ফেব্রুয়ারি-এই দিনে একটি লিখা আমার ছাপা হয় স’ানীয় দৈনিক দাবানলে। ধন্যবাদ দাবানল কর্তৃপক্ষকেও।

তারপরও বলছি বঞ্চনা যে জোটেনি তা নয়। এখনো শীত এলে শরীরের ব্যাথা অনুভুত হয়। আমাকে কেউ ছাড় দেয়নি। সংবাদের জন্য ছাড়েনি-রাজনৈতিক দলগুলো-আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জামাত অন্যদিকে পুলিশও।

প্রমোশন দিয়ে উপজেলা থেকে জেলা প্রতিনিধি বানিয়ে হালি বেগমের মত কষ্টও আমাকে করতে হয়েছে। না খেয়ে থেকেও বলতে হয়েছে-না ঠিক আছে, চলে যাচ্ছে জীবননা। কর্তৃপক্ষকে বলেও বেতন বাড়াতে পারিনি। কাজের মূল্যায়নে একাধিক পুরষ্কার ও ধন্যবাদের চিঠি জুটলেও আর্থিক দৈন্যতায় ভুগতে হয়েছে। বড়ই কষ্ট পেয়েছি। যাহোক সেসব মনে করতে চাই না।

ব্লগার সবিশেষ-সাংবাদিকদের মন অতৃপ্ত থাকে। চারপাশে শুনতে পাই মানুষের আহাজারি, দেখতে পাই অনেক অনিয়ম, দুর্নীতি ও অসংগতি। আমার লিখিালিখির এ দশ বছর পূর্তিতে বলতে কষ্ট নেই, একদিকে প্রেস আইন, অপরদিকে সংবাদপত্রের নিজস্ব কিছু নীতিমালা সাংবাদিকদের গলা চিপে ধরে আছে। আমরা চিৎকার করছি-কিন’ কিছুতেই শব্দ বের হতে দিচ্ছে না। তারপরও আমি ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি-যদিও অপরাধ আমাদের নয়। তাদের সৎসাহসের ঘাটতির কাছে হয়তো আমরা জিম্মি।

সুখের কথা এই-ব্লগ আমাদের লিখার স্বাধীনতা দিয়েছে। দিয়েছে লিখা বিনোদনের একটি মাইলফলক হিসেবে। আমরা এখানে লিখতে পারি মন খুলে। এখানে ব্লক পোষক বলেন না, এটা লিখা যাবে না, ওটা করা যাবে না। এটা করলে ওরা আমাদের ওপর চড়াও হবে।

আমি ব্লগে মাত্র কদিন। আমার এ কদিনে মনে হয়েছে ব্লগ হলো সভ্য পাঠক ও লেখিয়েদের একটা আড্ডাখানা। আমি এখানে যুক্ত হতে পেরে ধন্য মনে করছি নিজেকে।

আমি আশা করছি-ব্লগ হয়ে উঠবে মুক্ত সাংবাদিকতার একটি উৎকৃষ্ট উদাহরন। হয়তো এমন একটি দিন অপেক্ষা করছে-পত্রিকা, টেলিভিশন র্সংঘটিত ঘটনা, দুর্ঘটনা ও অসংগতির বিষয়ে কি বলছে আর ব্লগাররা কি বলছেন-এমন বিশ্বাসযোগ্যতা, আস’ার জায়গা হয়তো ব্লগ পরিনত হতে। ব্লগই পরিপূর্ন সাংবাদিকতার বহিঃপ্রকাশ। (যদি কেউ আবার গলা চেপে ধরে, সেটা হয়তো হবে বড়ই কষ্টের)

প্রিয় ব্লগার, আমি আড্ডাবাজ নই, দিন দিন একা হয়ে পড়ছি ক্রমান্বয়ে। এখন কিছুটা জীবন ফিরে পেয়েছি-ব্লগের কল্যানে। আগামী দিনগুলো আপনাদের সাথেই থাকবো-এ প্রত্যয় আমি ঘোষনা করছি।
আশাকরছি ভালো কিছু লিখা (সংবাদ) উপহার দিতে পারবো আপনাদের।

উফ, ৭শ শব্দ হয়ে গেছে প্রায়। সুযোগ পেলেই মানুষ অনেক বক বক করে ফেলে-আমিও করে ফেললাম। দুঃখিত। সর্বোপরী ব্লগার ভাইদের বলছি-আমি সন্তুষ্ট নই সাংবাদিকতায় (যদিও পেট চলছে), আমি সন্তুষ্ট ব্লগে (যদিও পেট চলবে না এখানে, মনের খোড়াক মিটবে)। আমি একটা ধারাবাহিক লিখা লিখছি আপনাদের জন্য-আগামী ৭ দিনের মধ্যেই ব্লগে পোষ্ট করবো-১০ পর্বের লিখাটি-এটা আমার অঙ্গিকার। মঙ্গল কামনা করছি সবার। ধন্যবাদ ব্লগার, ব্লগ পোষক সহ সবাইকে।