ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক নিয়োগের প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার গুজব উঠেছে। এ ঘটনায় পুলিশ সন্ধা থেকেই ঠাকুরগাঁওয়ের বিভিন্নস’ানে অভিযান অব্যাহত রেখেছে। তবে এখন পর্যন- (রাত ১ টা) প্রশ্নপত্র উদ্ধার এবং এ ঘটনায় জড়িত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

সারাদেশের মত আগামীকাল ঠাকুরগাঁও জেলাতেও অনুষ্ঠিত হবে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা। এতে ৩২৬ টি পদের বিপরীতে পরীক্ষায় অংশ নিবেন ৪৩ হাজার ৬শ ৫৭ জন প্রার্থী। পরীক্ষায় অংশগ্রহন করতে ইতিমধ্যে জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে পরীক্ষার্থীরা জেলা শহরে আসতে শুরু করেছেন। সন্ধার পরে শহরময় রটে যায় প্রশ্ন পত্র ফাঁস হয়েছে। আগামীকালের পরীক্ষায় অংশ নিবেন এমন একাধিক ব্যক্তি ফোন করে জানান, শহরময় রটে গেছে এবং বিভিন্ন জনের হাতে হাতে প্রশ্নপত্রের ফটোকপি। একসেট প্রশ্নপত্র ৩০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ২ লাখ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পরীক্ষায় অংশগ্রহনেচ্ছু এমন কয়েকজনকে জিজ্ঞেস করা হলে তারা জানান, তারা শুনেছেন প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে-কিন্তু তারা এর কোন প্রমান দিতে পারেননি। বেশ কিছু পরীক্ষার্থী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েগেছে এটা খুবই সত্য কথা। কেউ কি চায় যে, নিজে নিজে বিপদে পড়-ক?, তাই কেউ হাতে পাওয়া প্রশ্নপত্রের কোন নমুনাই পুলিশ বা সাংবাদিককে জানাবে না।

এদিকে পুলিশের একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, সন্ধার পরে পুলিশের ডিবি, ডিএসবি, এনএসআই সহ আরো কয়েকটি টিম শহরময় চষে বেড়াচ্ছেন প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা তদনে-। পুলিশের একাধিক সূত্র জানান, প্রমান এখনো মিলেনি তবে প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়ে যাবার খবরটি সম্ভবত একেবারেই গুজব নয়। তবে এখনো অভিযান চলছে বলে তারা জানান।