ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

আমি নিজেই একজন সাহিত্য প্রেমি। রবি ঠাকুর, কবি নজরুল এর লেখা কবিতা আমাকে ভাল লাগে। কিন্তু কোন কবিতা বা সাহিত্যের বই এ ধর্ম, দর্শন, ইতিহাস,বিজ্ঞান সবগুলো পাওয়া যাই না। ঠিক তেমনই ধর্ম, দর্শন, ইতিহাস কিংবা বিজ্ঞানের বইতেও এই সবগুলো একসাথে পাওয়া যাই না।

কিন্তু একটা বই আছে যার মত কবিতা কেও রচনা করতে পারেনা। যার মত ধর্ম আর একটাও পাওয়া যাই না। যে বই এ ইতিহাস আর দর্শনের কোন কমতি নাই। যার ভবিষ্যতবাণী কখন ভুল হয় না। যার মত বিজ্ঞানের এত বিবরন আর একটাতেও নাই। যার অনুসরন মাধ্যমে মানুষ তার জীবন কে সহজ সুন্দর ও সঠিক ভাবে অতিবাহিত করতে পারবে।

সে বই কোন মানুষের লেখা নই । কেন মানুষ কি এত সুন্দর করে সাহিত্য, ধর্ম,দর্শন,ইতিহাস,বিজ্ঞান,ভবিষ্যতবাণী একটি বই তে লিখতে পারে।

তাই ত যিনি বইটি লিখেছেন তিনিই বলেছেনঃ

وَإِن كُنتُمْ فِى رَيْبٍۢ مِّمَّا نَزَّلْنَا عَلَىٰ عَبْدِنَا فَأْتُوا۟ بِسُورَةٍۢ مِّن مِّثْلِهِۦ وَٱدْعُوا۟ شُهَدَآءَكُم مِّن دُونِ ٱللَّهِ إِن كُنتُمْ صَـٰدِقِينَ (surah 02 verse 23)

অর্থঃ ”এতদসম্পর্কে যদি তোমাদের কোন সন্দেহ থাকে যা আমি আমার বান্দার প্রতি অবতীর্ণ করেছি, তাহলে এর মত একটি সূরা রচনা করে নিয়ে এস। তোমাদের সেসব সাহায্যকারীদেরকে সঙ্গে নাও-এক আল্লাহকে ছাড়া, যদি তোমরা সত্যবাদী হয়ে থাকো।”

কিভাবে মানুষ পারবে যেহেতু এটি তার সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টি । এখন তো নিশচ্যই বুযেছেন তা ‘আলকুরানুল কারিম’ যা ‘আল্লাহ সুভানাহউতাআলা’ র সৃষ্টি । কেও সৃষ্টি করতে পারবে সুরা ইখলাস, নাস,ফালাক, আর মত সুরা আল রাহমানের মত আদেশ সম্পন্ন কবিতা, আর যার মধ্যে রয়েছে দর্শন,ইতিহাস আর রয়েছে ১০০০ এরও বেশি বিজ্ঞান সম্পর্কে আয়াত।

আমি এই পোস্ট করে ‘আলকুরানুল কারিম’ কে উপরে তুলছি না । এটা কোন মানুষের লেখা বই নই যা বিক্রয়ের জন্য আমি বিজ্ঞাপন দিচ্ছি।

হিরার সৌন্দর্য দেখানর জন্য কারর সহাইয়তা প্রয়োজন হই না , চাদের আলো ছড়ানোর জন্য কারও দরকার হই না। ঠিক

তেমনই সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টি ‘আলকুরানুল কারিম’ এর আলো ছড়ানোর জন্য আমার মত অযোজ্ঞতম যে এত সহজ সুন্দর ও সঠিক ধর্ম সম্পূর্ণ পালন করতে পারে না তার প্রয়োজন হয় না।

আমি বলতে চাই যে ‘আলকুরানুল কারিম’ এর মত অমূল্য বই কে আমরা শ্রদ্ধা করি কিন্তু আমরা তার অর্থ বুঝে পরি না । আমরা অন্যান্য লেখকের বই ঠিকিই পরি কিন্তু যে বই এর লেখক ‘আল্লাহ সুভানাহউতাআলা’ আমরা তার বই পরি না।