ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

পর্দা অর্থ নারীকে চার দেয়ালের মাঝে আটকে রাখা নয়; বরং পর্দা হল নারীর সম্ভ্রম রক্ষার এক মজবুত দূর্গ। আর নারীর সেই পর্দা হচ্ছে বোরখা। বিশ্ব জরিপে দেখা গেছে- বোরখাচ্ছাধিত নারীর তুলনায় বোরখাবিহীন নারীগণই বেশি লাঞ্ছিত হচ্ছেন প্রতিদিন। বোরখাবিহীন নারীরই সম্ভ্রম হারানোর ঝুঁকি বেশি। ইসলামী আদর্শে বিশ্বাসী বোরখাচ্ছাধিত একজন নারী নিজেকে পর্দায় বন্দী মনে করেন না। তিনি নিজেকে নিরাপত্তাবেষ্টনীতে সংরক্ষিত মনে করেন। নিজেকে পবিত্র ও পরিশুদ্ধ মনে করেন। আর পুরুষদের পর্দানশীল নারীদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল করে তোলে। কিন্তু তথাকথিত পুরুষদের এটা সহ্য হয়না, কারণ তারা ব্যাকুল থাকে পর্দার অন্তরালে লুকায়িত নারীর সৌন্দর্য কামনার আগুনে ফুটিয়ে তুলতে।

বাস্তবে মুসলিম নারীগণ ঐসব তথাকথিত স্বাধীন নারীদের চেয়ে অনেক বেশি স্বাধীন। নারী স্বাধীনতার নামে আসলে তথাকথিত পশ্চিমা পুরুষগণ নারীদেরকে দিয়ে কাজ আদায় করে নিচ্ছে মাত্র। তারাই কৌশলে নারী অধিকার থেকে নারীদেরকে বঞ্চিত করে চলেছে বেশি। বোকা নারী না বুঝে তাদের ফাঁদে পা দিচ্ছে। তারা নারীদেরকে স্বল্প বসনা বানিয়ে ভোগের সামগ্রীতে পরিণত করে চলেছে প্রতিনিয়ত। কর্মঠ নারী তৈরীর নামে নারীদেরকে প্রকৃত নারী স্বত্বা থেকে দূরে সড়িয়ে দিচ্ছে তারা।