ক্যাটেগরিঃ নাগরিক সমস্যা

 

পরিবেশ ও প্রকৃতি বিপর্যয়ের ফলে দ্রুতমাত্রায় পৃথিবীর ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। বিশেষ করে তৃতীয়বিশ্বের দেশসমূহ আক্রান্ত হচ্ছে বেশী। আমাদের দেশে এর অন্যতম কারণ অধিক জনসংখ্যা। বিগত কয়েক বছরে বাংলাদেশের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে সরকারী বেসরকারী উল্লেখযোগ্য কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। ফলে অধিক সন্তান জন্মদানে অধিক লাভ আবার কেউ কেউ মুখ দিয়াছেন যিনি আহার দিবেন তিনি। এই নীতিতে উতসাহী হয়ে অধিকহারে জন্ম দিয়ে চলছেন। বাংলাদেশের প্রকৃত জনসংখ্যা সর্ম্পকে সরকারী পরিসংখ্যান থাকলেও প্রকৃতপক্ষে জনসংখ্যা আরো বেশী হতে পারে বলে অনেকের ধারণা। তিন দশক পূর্বে ‘দুটি সন্তানেই যথেষ্ট’নীতির অনেক অগ্রগতি হলেও পরবর্তীতে ‘সন্তান একটি হলে ভালো হয়’, এ আন্দোলন তেমন জনপ্রিয় বা কার্যকর হয়নি। বাংলাদেশের সার্বিক সমস্যার মূলবিন্দু হচ্ছে অধিক জনসংখ্যা। স্খান, জল, খাদ্য, শিক্ষা, চিকিতসা, প্রকৃতি, পরিবেশ যাই বলুননা কেন, সব সম্যার একটাই কারণ.. অধিক জনসংখ্যা। আজকাল রাস্তাঘাটে বেরুলে মানুষ দেখে গিনিপিগের মত মনে হয় । কোথায় ছিলো এত মানুষ?

জনসংখ্যা সমস্যা প্রধান ও একমাত্র সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করে অবিলম্বে নতুন আইন ও নীতি চালু করা হোক। দুটি সন্তানের বেশী সন্তান আছে এমন কারো সন্তান সরকারী স্কুল কলেজে লেখাপড়া করতে পারবে না এবং চিকিতসা সহ অনেক সরকারী সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত করা হবে। সরকারী চাকুরী নীতিমালায় একটি সন্তান রয়েছে এমন প্রার্থিদের অগ্রাধিকার এবং ভবিষ্যতে আর সন্তান নেবে না এমন দম্পতিদের চাকুরী দেয়া বাধ্যতামূলক করা হোক। সরকারী চাকুরীজীবিরা নিয়োগপ্রাপ্ত হওয়ার পর দুটি সন্তানের অধিক সন্তান নেবেন না আর নিলে চাকুরী থেকে অব্যহতি । এরকম নতুন আইন ও নীতিমালা খুবই প্রয়োজন।