ক্যাটেগরিঃ নাগরিক মত-অমত

ইদানীংকালে একটি গালি একটি বিশেষমহলে মারাত্মকভাবে জনপ্রিয়তা অর্জন করিয়াছে। তাহা হইলো “তুই একটা ক্ষ্যাত”/ “দেখ দেখ মাইয়াডা কী পরিমান ক্ষ্যাত!!!” আমার দ্বিধাটা ঠিক এইখানে….
একটু বিশ্লেষন করা যাক…..

** ক্ষ্যাত কী??

>> ছোটবেলা থেকে এ যাবতকাল পুস্তকে দেখেছি বা জেনেছি ক্ষেত একটি ত্রিভুজাকার, আয়তাকার বা বর্গাকার জমিবিশেষ যেখানে মানুষ, গরুছাগলসহ অন্যান্য গবাদি ও গৃহপালিত পশুজীব অবাধে চলাচল করতে পারে এবং ফসল ফলানোর একমাত্র জায়গা। যাকে ইশটাইল মেরে একটি ইশমার্ট মহল “ক্ষ্যাত” বলিয়া থাকেন।

কিন্তু কালের পরিক্রমায় ইহা কিরুপে একটি ব্যক্তি/ব্যাক্তির নাম/বিশেষনে পরিনত হইল তাহা আমার বোধগম্য নয়।

যতটুকু বুঝিয়াছি যে, কোনো ব্যাক্তি বা মহল যদি স্মার্ট হইতে ব্যার্থ হয় তখন তাকে ক্ষ্যাত বলে অবিহিত করা হয়। কিন্তু কেনো/ কিভাবে ইহা সম্ভব!!!??

মজার ব্যাপার হলো এতে আবার ঐ “ক্ষ্যাত” নামক ব্যাক্তিটির আকৃতিগত বা গুনগত কোনো পরিবর্তন পরিলক্ষিত হয়না!!! তাইলে কেমনে কি!!!

***ওই মহলটির মতে আপনি কখন বুঝবেন আপনি একটি ক্ষ্যাতে পরিনত হয়েছেন????

>>পর্যাপ্ত জামাকাপড় পরিধান করিয়া লোকসম্মুখে আপনার বিশেষ অংগগুলো প্রদর্শন করতে ব্যার্থ হইয়াছেন?? তাহলে আপনি ক্ষ্যাত।

>> উন্নত রেস্তোরাঁয় খাচ্ছেন ভাল কথা কিন্তু তৃপ্তি সহকারে খাবার চেটেপুটে খেয়েছেন??? তাহলে….!!

>> দামি বক্ষবন্ধনীতে আবদ্ধ করিয়া আপনার অনুন্নত বক্ষকে উন্নতরুপে প্রদর্শনে ব্যার্থ হইয়াছেন??? তাহলে আপনি ক্ষ্যাত!!!

>> পাশদিয়ে হেটে যাওয়া রমণীকে দেখে উত্তক্ত না করে ঢেলাঢেলা চোখে তাকিয়ে থাকেন?? তাইলে তো আপনি মুলাক্ষ্যাত!!!

>> ভাইয়া/ আপুর স্থলে ব্রো,সিস,আপ্পি,বাডি,দুধ(dude) এর ব্যাবহারিক প্রয়োগ যানেননা?? তাইলে তো আপনি পাটক্ষ্যাত!!!

>> নিজের আপ্লোডিতো একক ছবিতে `itzz mmee’ টাইপের ক্যাপশন দেননি??? তাইলে তো আপনি কর্দমাক্ত ক্ষ্যাত!!! মাইনষে বুঝবো ক্যামনে যে এইডা আফনে!!!??

>> আপনি ভার্জিন??!!! তাইলে আপনি বেগুনক্ষ্যাত!!!

>> দীর্ঘদিন একই গার্ল/ বয়ফ্রেন্ড নিয়ে দিনাতিপাত করছেন??? তাহলে আপনি ধইঞ্চ্যাক্ষ্যাত!!!

>> আপনি নীল চলচিত্র দেখেননি/এক দমে ১০-১২টা পর্নস্টারের নাম বলতে পারেননা!!! জেনে রাখো তুমি নীলক্ষ্যাত!!!

>> বাবার ফোন রিসিভ করেই সালাম দিয়ে নুইয়ে পর?? তাহলে তুমি শুধু “ক্ষ্যাত” না তোমার পায়ে কাদা লেগে আছে।

এতটুকু পাঠের পর নিজেকে যদি ক্ষ্যাত ক্ষ্যাত মালুম হয় এবং স্মার্ট হইবার জন্য মনডা আনচান করে সেক্ষেত্রে আপনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ব্লগে লেখা আমার “স্মার্টনেসের আদ্যোপান্ত” লেখাটা পড়তে পারেন। কনফিডেন্স না বাড়লে আপনি জাতক্ষ্যাত!!!

 

*** ক্ষ্যাতের বৈশিষ্ট্য ও গুনাগুন:

>> ইহা জড় পদার্থ কিন্তু ক্ষেত্রবিশেষে জীবের চেয়েও দামী।

>> মানুষ ইহার উপর বসবাস সহ নানানরকম কর্ম/অপকর্ম সম্পাদন করিলেও ইহা কোনো প্রতিক্রিয়া করেনা।

>>দেহ মাটির তৈরী এবং সারাদেহে সবুজ রংএর লোম রয়েছে, পক্ষান্তরে মানুষ মাটিত হইলেও লোম সাদা/ কালো হয়।….ইত্যাদি।
………………………………………………..

উপরোক্ত পশমচেরা বিশ্লেষণ থেকে আমি সম্ভবত প্রমাণ করতে সমর্থ হইয়াছি যে কোনো বাক্তির পক্ষে “ক্ষ্যাতের” আকৃতি,বৈশিষ্ট্য, গুনাগুন কোনটিই ধারন করা সম্ভব নয়। এবং ক্ষ্যাতের ব্যাক্তিত্ব ঐসকল তথাকথিত ইশমার্টদের চাইতে অনেক উচ্চমর্গীয়। so u should feel proud if anyone use to call u “ক্ষ্যাত”। কাজেই কাউকে ক্ষ্যাত বলার পূর্বে ভাবিয়া নিন ইহা শব্দের অবাঞ্চিত প্রয়োগ।

*****লেখাটি একান্তই আমার নিজের ভাবনার, কাজেই কারো ভাবনার সাথে সাংঘর্ষিক হলে অগ্রিম ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি, ধন্যবাদ*****