ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

 

৩০ ডিসেম্বর ২০১২

বরাবর,

রেজিষ্ট্রার

গণবিশ্ববিদ্যালয়, সাভার, ঢাকা।

বিষয়: র‍্যাগের নামে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার প্রসঙ্গে।

জনাব,

সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, আমি আপনার বিশ্ববিদ্যালয়ের এমপিবিএমই ডিপার্টমেন্টের ১২তম ব্যাচের ছাত্র। গত ২৬শে ডিসেম্বর আমার অ্যানাটমি ক্লাস টিউটোরিয়াল পরীক্ষা ছিল। তাই গ্রুপ স্টাডির উদ্দেশ্যে আমার মেস থেকে গত ২৪শে ডিসেম্বর এনায়েতপুর হোয়াইট হাউজ মেসে যাই। বর্তমানে আমি ফুলের টেক আনোয়ার সাহেবের বাড়িতে অবস্থান করছি। হোয়াইট হাউজ মেসে গেলে ২৪শে ডিসেম্বর আপনার বিশ্ববিদ্যালয়ের কতিপয় ছাত্র র‍্যাগের নামে আমাকে অশ্লীল বাক্য, আচরণ ও ক্রিয়াকলাপে বাধ্য করে। এতে আমি প্রচণ্ড মানসিক আঘাত পাই। আমি বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যৈষ্ঠ ছাত্রদের জানালে তারা ঐ বিপথগামী ছাত্রদের ডেকে এ ধরনের আচরণ পুনরায় না করার পরামর্শ দেন। এতে তারা এ ধরনের আচরণ পুনরায় না করার আশ্বাস দেন।

গত ২৭শে ডিসেম্বর আমার আসন্ন ফিজিক্স পরীক্ষার উদ্দেশ্যে আমি পুনরায় হোয়াইট হাউজ মেসে যাই। উল্লেখ্যে, ৩০শে ডিসেম্বর আমার ফিজিক্স পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ২৭শে ডিসেম্বর হোয়াইট হাউজ মেসে গেলে রাত আনুমানিক ১টায় তারা আমাকে ডেকে নিয়ে যায় এবং প্রচণ্ড অপমান, মানহানিকর আচরণ ও শারীরিক নির্যাতন করে। এ সম তারা আমার শীত বস্ত্র কেড়ে নিয়ে যায় এবং ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। আমাকে শারীরিক নির্যাতনে তারা কাঠের লাঠি ব্যবহার করে।

এখানে উল্লেখ্য যে, গত ২৭শে ডিসেম্বর তারা রাত আনুমানিক ১১:৩০ থেকে রাত ২টা পর্যন্ত র‍্যাগের নামে আমাকে মানসিক নির্যাতন করে। এবং ২৪শে ডিসেম্বর আনুমানিক রাত ১টা থেকে ২টা পর্যন্ত শারীরিক নির্যাতন করেন। নির্যাতনের সময় তারা আমাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের ভয় প্রদর্শন করেন। এ বিষয়ে প্রমাণস্বরূপ আমার কাছে স্বল্প সময়ের একটি অডিও রেকর্ড রয়েছে।

এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন এমবিবিএস’এর ছাত্র অয়ন (১৬তম ব্যাচ), নাফিস (১৩তম ব্যাচ), ফার্মেসী ডিপার্টমেন্টের ২১তম ব্যাচের ছাত্র মিলন, প্রণব, সিয়াম, সম্রাট, সজীব, হৃদয় ও ফার্মেসী ২২তম ব্যাচের ছাত্র জহিরুল।

তাই আমি এই অপসংস্কৃতি র‍্যাগের নামে আমাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের উপযুক্ত বিচার চাই। উল্লেখ্য যে, এমবিবিএস’এর ছাত্র অয়ন আমাকে শারীরিক নির্যাতন করেন এবং ফার্মেসীর ছাত্র মিলন আমাকে লাঠিকাঘাত করেন।

অতএব, জনাব আপনার নিকট সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, এই অপসংস্কৃতির বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান স্পষ্ট করে এবং যথোপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করে আমাকে বাধিত করবেন।

আপনার একান্ত বাধ্যগত,

আরিফ হোসেন সাঈদ,

মেডিকেল ফিজিক্স এন্ড বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ

ব্যাচ – ১২তম

রোল – ১৭

এখন পর্যন্ত এ আবেদনের প্রেক্ষিতে কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। কর্তৃপক্ষ কি আদৌ কোন পদক্ষেপ নিবে? কর্তৃপক্ষের কি সে স্বদিচ্ছা আছে?