ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

হায়রে সার্বভৌমত্ব! এবার এক ভারতীয় চর অস্ত্রসহ গ্রেফতার হয়েছে। রোববার সকালে শেরপুরে মধু টিলা ইকোপার্কে টাওয়ার থেকে পর্যবেক্ষণকালে তাকে ধরা হয়। তাকে একটি পিস্তল ও ১০ রাউন্ড গুলিসহ আটক করা হয়েছে। জানা গেছে, গ্রেপ্তার হওয়া হাবিলদার দিলীপ কেদার বিএসএফ’র গোয়েন্দা।

বিজিবি জামালপুরের বিজিবি-৬ ব্যাটালিয়নের মেজর নাহিদ এর সত্যতা স্বীকার করেন।

কিন্তু আমাদের শঙ্কা হয়। আমাদের শঙ্কা হয় তাকে গ্রেফতারের অপরাধে বিজিবির দায়ী সদস্যরা বরখাস্ত হবেন। চাকরি চ্যুত হবেন। এবং ভারতীয় গোয়েন্দা বাহিনী ও সরকারের কাছে মাথা নত করে এই অন্যায়ের কাছে মাথা নত করে তাকে সসম্মানের সাথে দেশে ফেরত পাঠানো হবে। এবং তাকে গ্রেফতারের অপরাধে ভারতের কাছে ক্ষমা চাওয়া হবে। আমরা এই অপরাধের সুষ্ঠু বিচার ও শাস্তি চাই। আমরা চাই আমাদের দেশে অপরাধ সংগঠনের জন্য অপরাধী ভারতীয়দের সাজা হোক। এবং আমাদের দেশের নিরপরাধ নাগরিকদের দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করা হোক।

আমরা সরকারের কাছে জানতে চাই, এবার কি ব্যবস্থা নেয়া হবে বিজিবির বিরুদ্ধে? কোন ভাষায় প্রতিবাদ করা হবে? কি জবাব দেবেন বাংলাদেশকে? এর থেকে কি শিক্ষা নেবেন? বিজিবির কাছ থেকে কি ধরনের ইঙ্গিত পেলেন? নাকি বাংলাদেশ সরকারের ভঙ্গুর দুর্বল পররাষ্ট্রনীতির জন্য বিজিবির কাছে আমার দেশের সীমান্ত আর নাগরিকরা গনিমতের মাল সেটা আমাদের আবার মনে করিয়ে দেবেন? আমরা শুধু এতটুকু বলতে চাই, আর যদি ভারতের কোন অন্যায়কে প্রশ্রয় দেয়া হয় তবে সে অপরাধগুলো নিজেদের নোট বুকে লিখে রাখবেন। খুব তাড়াতাড়ি আপনাদের সুষ্ঠু বিচার সম্পন্ন করা হবে।

আরিফ হোসেন সাঈদ
০৩/০৫/১২ নারায়ণগঞ্জ।