ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

 

তুমি করে বলি। তোমার প্রফাইলে ঘেঁটে দেখলাম তুমি ইসলামী ধ্যন ধারনার। দুঃখ পেলাম। বাংলাদেশের সন্তান হয়ে তুমি যে সৌদি আরবের এজেন্ট হিসেবে কাজ করছো, একাত্তরের শহীদদের স্মৃতিতে কলঙ্ক লেপন করছো, তা দেখে আরেকজন বাংলাদেশী হিসেবে লজ্জায় আমার মাথা নুয়ে এলো।

এটা নিশ্চিত ছোটবেলা থেকেই তোমাকে ‘ইসলামিস্ট’ মানে সৌদিয়ারবের দালালরা বুঝিয়েছে ইসলামই হলো সবকিছু, অথচ এটা কি জানো সৌদিয়ারব এই ইসলাম নামের পন্য বিক্রি করে বছরে কতো হাজার কোটি টাকা উপার্জন করে?

তোমরা, অবুঝ তরুণ প্রজন্ম, সংঘবদ্ধ সৌদি এজেন্টদের শিকার হয়েছো, তোমাদের মেধা অপচয় করছো পাকিস্তান এবং সৌদিয়ারবের ব্যবসা বৃদ্ধিতে, অথচ তার বিনিময়ে তুমি কি পাচ্ছো জানো? হ্যাঁ ঠিক অনুমান করেছো, তুমি এবং তোমাদের সঙ্গী সাথীরা পাচ্ছে বাংলাদেশের আর্তনাদ করতে থাকা ষোল কোটি মানুষের ঘৃনা। দেশজুড়ে যখন তোমরা অরাজকতা চালাচ্ছো সরকার পতনের আন্দোলনের নামে, জনগন কিন্তু ততো বেশি তোমাদের ঘৃনা করতে শিখছে।

একাত্তরে এই সৌদি/পাকিস্তানী এজেন্ট রা ইসলামেরই নামে যখন আমাদের হত্যা করেছে, তোমার মা বোনদের ধর্ষন করেছে, সেই নৃশংস পশুদের বিরুদ্ধে কিন্তু আমরা, বাংলাদেশের জনগনই যুদ্ধ করেছে। আর সেই দালালরা পয়সা আর লুটের ভাগের বিনিময়ে চামচামি করেছে পাকিস্তানী হায়েনা দের।

আমরা গরীব একটি জাতি। সৌদিদের বানানো পয়সা আমাদের নেই, কিন্তু আমাদের আছে মর্যাদা। কিন্তু তোমার কি আছে, একটু ভেবে দেখো?

তুমি নিজেকে মুসলমান বলো, কিন্তু ‘মুসলিম’ আসলে কি? সৌদি সংস্কৃতি এবং ধর্মের নির্লজ্ব পালনই তো ইসলাম নামে পরিচিত হচ্ছে, তাই না?

অথচ তুমি কি জানো সেই সৌদি আর আমিরাতের শেখদের সামনে যদি তুমি গিয়ে দাঁড়াও, আর বাহাবার জন্য তাদের জানাও যে তুমি ‘মুসলমান’, তারা কি করবে জানো?

তোমার দিকে ঘৃনা এবং তাচ্ছিল্যের দিকে তাকিয়ে বলবে, আহারে মিসকিনা। তাদের চোখে আমরা গরীব এবং খুবই বেকুব। আমাদের গরবী জনশক্তি তাদের দেশে গিয়ে নিরন্তর নির্যাতনের স্বীকার হয়, আর গৃহকর্মী নারীরা হয় নীরবে ধর্ষিত।

তারা কিন্তু নিজেদের আবিষ্কার এবং পন্য ইসলাম কোনোদিনও চেখে বা পালন করে দেখে না। কোনো শেখ বা তেলকুপের মালিক কে কোনোদিন নিজের ঘরে একাকী নামাজ পড়তে দেখবে না, কারন এরা নিজেরা ঠিকই জানে, ইসলাম বা মুসলিম পুরোটাই তাদের আবিষ্কার এবং ব্যাবসা। নিজেদের জন্য তারা পৃথিবীর সকল সুখ, অর্থ, মদ্য, নারী এসবে ব্যয় করে। কিন্তু আমাদের জন্য এই ‘পন্য’ তারা রপ্তানি করেছে পুরোবিশ্বে, আর এই ব্যবসায়ে ব্যবহার করছে তোমাদের মানে শিবির. জামাত এবং সকল ইসলামিস্টদের।

আসলে মৃত্যুর পর কি হবে, আমাদের স্বল্পবুদ্ধির মনে এ নিয়ে যে ভয় কাজ করে, তাকে পুঁজি করেই পৃথিবীর সবচেয়ে বৃহৎ ও লাভজনক এই ব্যবসা করে যাচ্ছে সৌদিয়ারব।
এবার একটু ভেবে দেখো, তুমি যখন বাংলাদেশের আকাশ বাতাস পানি সেবন করে বড়ো হচ্ছিলে, তার মধুর পরশের সাথে বেঈমানী করেছে যারা, মানে রাজাকার, আলবদর যুদ্ধাপরাধীরা, এদের সাথে কাজ করে তুমিও কি স্বদেশের প্রতি বেঈমানী করছো না?

তোমাদেরকে টাকা পয়সা অস্ত্র দিয়ে দেশের ভেতরে এক ধরনের বাহিনী বানানো হয়েছে, কিন্তু এটা কি বুঝতে পারো, পুরো দেশবাসী তোমাদের কতটুকু ঘৃনা করে? ঠিক যেভাবে ঘৃনিত হয়েছিলো রাজকার/আলবদর সহ সকল বিশ্বাসঘাতকেরা একাত্তরে!

আমাদের দেশ, একটাই ছোট্ট দেশ, কিন্তু আমাদের কি নেই, বলো? আমাদের সুজলা সুফলা একটা ভুমি আছে, নদী আছে, সমুদ্র আছে, নরম মনের ভালো মানুষ আছে।

অথচ হাজার হাজার মাইল দুরের একটা মরুভূমির কিছু বানোয়াট কাহিনীর উপর ভর করে তুমি তোমারই স্বদেশকে নষ্ট হতে দিচ্ছো?

এতে কি তোমার বিবেকে এতটুকুও বাধে না?