ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

 

সাগর-রুনি হত্যাকান্ডের পর সরাষ্ট্রমন্ত্রীর ৪৮ ঘন্টার আশাবাদ, আজো শেষ হয় নি! ঘড়ির কাঁটায় সেকেন্ড, মিনিট মেপে মেপে ছোট্ট মেঘের চোখের পানি শুকায়, কিন্তু সে কাঁটা ঘন্টায় পৌছে না! অপেক্ষার প্রহর গুনতে গুনতে ঘুমিয়ে পড়ে মেঘ, ঘুমিয়ে পড়ে ঘড়িটিও! কালের গহব্বরে বিলিন হয় ৪৮ ঘন্টা!

মেঘ এতোটাই ছোট, ও নিশ্চই ৪৮ ঘন্টা বোঝে না! ও বোঝেনা, আমাদের বেডরুম পাহারা দেওয়া কোন সরকারের কাজ নয়! ও বোঝে না পরকীয়া কি? বাসায় মদের আড্ডা কি? ওর এটা বোঝার কথাও নয়।

তবে মেঘের এক জগৎ আছে, শিশু মনের স্বপ্নজগৎ- যেখানে তার বেডরুম নিরাপদ। পরকীয়া, মদের আসরের মতো বিশ্রী শব্দ আর ৪৮ ঘন্টার নিস্ফল আশাবাদ, যে জগৎকে এখনো স্পর্শ করেনি………

মেঘের রুপকথাময় স্বপ্ন জগতে আছে- হাতিশালায় হাতি, ঘোড়াশালায় ঘোড়া। ব্যঙ্গমা-ব্যঙ্গমী আছে। আছে রাক্ষস-খোক্ষসও……..যারা যাদুর প্রভাবে রাজকন্যাকে ঘুম পাড়িয়ে রেখেছে। সোনার কাঠি আর রুপোর কাঠির ছোয়ায় যে অশুভ প্রভাব কেটে যাবে। রাজকন্যার ঘুম ভাঙ্গবে, রাজ্য আনন্দে ঝলমল করবে……

মেঘ নিশ্চই, নির্মম বাস্তবতার মাঝে তার স্বপ্নরাজ্য খুঁজে ফেরে! মিডিয়া রাক্ষস আর স্বার্থানেষী খোক্ষস যে তার মা-বাবাকে ঘুম পাড়িয়ে রেখেছে….সোনার কাঠি-রুপোর কাঠির ছোঁয়ায় যে তাদের ঘুম ভাঙ্গবে!

কিন্তু সে ঘুম আর কখনোই ভাঙ্গবে না। বাস্তব জগতের রাক্ষস খোক্ষসেরা যে অনেক বেশী শক্তিশালী! শিশু মনের স্বপ্নরাজ্য তারা নিয়ন্ত্রন করে! নিরাপদ বেডরুমকে নিরাপত্তাহীন করে! নিয়ন্ত্রন করে ঘড়ির কাঁটা…..৪৮ ঘন্টা!!! এমনকি তারা প্রধানমন্ত্রীকেও তাচ্ছিলের সুরে বাচাল বলতে পারে!

তারা এতোটাই শক্তিশালী! তাদের প্রান ভোমরা এতোটাই সুরক্ষিত! যার খবর জানেনা কোন ব্যঙ্গমা-ব্যঙ্গমীও!

তবে মেঘের স্বপ্নরাজ্যের এক ব্যঙ্গমা বাসা বেঁধেছে আমার মনের ডালে! অনিরাপদ নীড়ে যে হারিয়েছে তার ব্যঙ্গমীকে! এ নিয়ে তার কোন ক্ষোভ নেই- নীড় পাহাড়া দেয়া তো কোন সরকারের কাজ না! সে ৪৮ ঘন্টার প্রতিক্ষায় থাকে না, রাক্ষস-খোক্ষসের প্রান ভোমরার খবরও তার অজানা! সে সাগর-রুনি হত্যার বিচারের দাবিতে সাংবাদিক ঐকে খুশি হয়, মাহফুজুর রহমানের পরকীয়া তত্বে ব্যঙ্গমীর শোকে ক্ষিপ্ত হয়……বিচারের ভবিষৎ নিয়ে হতাশ হয়……..

আজ প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে মাহফুজের বাচাল তত্বের ভিডিও দেখে ব্যঙ্গমাকে কহিলাম- এটিএনের চেয়ারম্যান তো এবার মাইনক্যা চিপায় পড়ছে!

ব্যঙ্গমা কহিলো- আরে ধুর…আম পাবলিকের মতো কথা কইয়ো না! চিপায় পড়ছে তো সরকার!

আমি কহিলাম- কিরূপ?

ব্যঙ্গমা কহিলো- না ধরিলে, বিরোধী পক্ষ সাগর-রুনি ইমোশন লইয়া রাজনীতি করিবে! আর ধরিলে, তারাই গনমাধ্যমের স্বাধিনতা গেল বলিয়া মায়া কান্না কাঁদিবে!

আমি কহিলাম- খাইছে….তাহা হইলে এখন কি হইবে?

ব্যঙ্গমা কহিলো- কাদম্বিনি মরিয়া প্রমান করিয়াছিলো তিনি মরেন নাই! হাসিনা আপাও এখন চুপ থাকিয়া প্রমান করিবে তিনি বাচাল নহে!!!

আমি কহিলাম- তাহা হয়তো হইবে না…..সুরন্জিত কহিয়াছিলেন- বাঘে ধরিলে ছাড়ে, হাসিনা ধরিলে ছাড়ে না!!! মাহফুজ এইবার ছাড়া পাইবে না!!!

ব্যঙ্গমা কহিলো- তাহাতেও বিপদ! সবাই কহিবে- খুনের জন্য নহে বাচাল বলিবার জন্যই কট খাইলো মাহফুজ!

আমি কহিলাম- ভারী আপদ….এখন উপায়???

ব্যঙ্গমা কহিলো- উপায় নাই গোলাম হোসেন! সরাষ্ট্রমন্ত্রীর ৪৮ ঘন্টা এখনো শেষ হয় নাই! ৪৮ ঘন্টার ব্যর্থতা এমন আরো ৪৮ সমস্যার জন্ম দিবে, সাথে বাচাল উপাধি ফাও……