ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

আজ(১৩’নভেম্বর’১২) প্রথম আলোয় MaXis মোবাইল ফোনের পূর্ণ পৃষ্ঠাব্যাপি বিজ্ঞাপন দিয়েছে!!! MaXis ফোন নাকি ১০০% ইসলামি ফোন!!!

আমি ভাবছিলাম, মানুষে মানুষে ধর্ম আছে। পিপিলিকার ও ধর্ম আছে!! (ছোটবেলায় শুনতাম-কালো পিপড়া নাকি মুছলমান আর ভারী বজ্জাত লাল পিপড়া হিন্দু!!)। এমনকি ধর্ম আছে গাছেদের!!! ক্রিসমাস ট্রি থ্রীষ্টান, তুলসি গাছ হিন্দু আর মেহেদী গাছ মুছলমান!!!
আর এ ডিজিটাল জামানায় দেখি, ধর্মেরও ডিজিটালকরন ঘটেছে…..ইসলামি ফোন এসেছে, সামনে হিন্দু ফোন আসবে, তারপর খ্রীষ্টান ফোন, বৌদ্ধ ফোন, উপজাতি ফোন, আহমেদীয়া ফোন, শিয়া-সুন্নি সব ফোন আসবে…….
মুসলিম পুরুষেরা মোবাইলে লাগাবে দাড়ি আর মেয়েরা পড়ারে বোরখা!! হিন্দু ফোনে নিচু জাতের লোকের কন্ঠ ছুলে ফোনের জাত যাবে, গঙ্গা জলের ছিটা দিতে হবে!!! বৌদ্ধ ফোন কিন্তু হবে অহিংস, গালি দুরে থাক জোরে কথা বলাও হবে মহাপাপ…………!!!
সানি লিয়নদের ভিডিও এ সকল ধার্মীক ফোনে সাপোর্ট করবে না!!! তবে সানি লিয়নরা হবে ফোনের ধর্মমন্দির কাস্টমার কেয়ারের দেবদাসী ম্যানেজার!!
একসময় আসবে যখন, সাম্প্রদায়িক বিদ্যেশে আর কেউ ভাঙ্গবে না মসজিদ, মন্দির, গির্জা…..বরং ডিজিটাল ধার্মীকতায় ভাঙ্গবে, ধর্মফোনের কাস্টমার কেয়ার…………………….

আমি হতবাক হয়ে যাই, বহুজাতিক কোম্পানিগুলো এদেশের মানুষের নির্মল অনুভুতি(স্বাধিনতা, ভাষা আন্দোলন, পহেলা বৈশাখ, লালন উৎসব এমনকি ধর্ম) নিয়ে কি নির্লজ্জ ব্যবসা করছে…………
অবশ্য শুধু বনিয়াদেরই দোষ দিচ্ছি কেন??? তারা তো মুনাফার জন্য বোধগুলোকে বিক্রি করবে পাইকারি থেকে খুচরা, খুলতে দেবে সালোয়ারের ফিতা, দিতে দেবে হাত অনভস্থ্য অভিনয়ে অভস্থ্য ব্রেসিয়ারের নিচে………..!!
কিন্তু আমরা কেন??? নিশ্চই আমাদের কাছে এ সকল অনুভুতি ব্যবসার ভ্যালু আছে???
আসলে নির্মম বাস্তবতা এটাই, বহুজাতিক কোম্পানিগুলো আমাদের অনুভুতির ব্যবসায়ি, আর আমরা এ ব্যবসার বড় ক্রেতা!!!