ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

যখন পাঁচ মিনিটে রাজধানী ঢাকাকে দুই ভাগ করা হলো…আমি ভাবছিলাম, এ যুগের শিশুদের গনিত শিখতে আর ধারাপাতের দরকার নেই!!! শিশুরা গনিত শিখবে রাজনীতি থেকে! মাইনাস-টু ফর্মুলা থেকে বিয়োগ। সেই ফর্মূলা ব্যর্থ করে দুই নেত্রীর প্লাস হওয়া থেকে যোগ। ঢাকা বিভক্তি থেকে ভাগ। আর জনভোগান্তির ক্রমাগত বৃদ্ধি থেকে গুন।

যদিও সরকারের কর্তা ব্যাক্তিরা, ঢাকা বিভক্তি থেকে ভাগ এবং গুন এক সাথে শেখাতে চাচ্ছেন! বিভক্ত ঢাকায় নাকি সেবার মান কয়েক গুন বৃদ্ধি পাবে। আমি ভাবছিলাম, রুপকথার সেই আটকুড়ে রাজার গল্প। যে রাজার আছে হাতিশালায় হাতি, ঘোড়াশালায় ঘোড়া, টাকশালে টাকা। কিন্তু রাজার মনে শান্তি নেই! রাজ্যে সুখ নেই! থাকবেই বা কি করে, রাজা যে আটকুড়ে। লোকে বলাবলি করে, রাজাও সন্তানের আশায় একটার পর একটা বিয়ে করে যান।

গল্গটা যদি আধুনিক যুগের হতো তাহলে হয়তো জানা যেত রাজা নপুংসক কিনা? রুপকথা বলেই হয়তো সমস্যা জানার সুযোগ নেই। তাই নপুংসক রাজার আটকুড়েমির মাশুল দিতে হয় একটার পর একটা রানীর। জনগনও অন্তহীন প্রত্যাশায় থাকে রাজার সন্তান হবে, আটকুড়েমি ঘুচবে, রাজ্যে শান্তি আসবে…

আমি ভাবছিলাম, বর্তমান সরকারের অবস্থাও সেই আটকুড়ে রাজার রুপকথার মতো। দেশে শান্তি নেই… শেয়ার বাজারে অব্যাহত সুচক প্রপাত, আইন শৃংখলার অবনতি, রাজধানীতে বিভিন্ন নাগরিক ভোগান্তি।
সরকার নাগরিক সুবিধা বাড়াতে সেই রাজার রানী বাড়ানোর মতো, উত্তর-দক্ষিন নামে ঢাকা বাড়াচ্ছেন!

কিন্তু তারা জানেন না তাদের সমস্যাটা কোথায়? নপুংসকের বৌ বাড়িয়ে লাভ কি? সমস্যা না জেনে, না বুঝে জনমতের তোয়াক্কা না করে ঢাকা ভাগ করেইবা কি লাভ? তবে আমি আশাবাদি, রুপকথার সেই রাজার কিন্তু অবশেষে সন্তান হয়, আটকুড়েমি ঘোচে! রাজার স্বপ্নে দেখা দেয় এক দরবেশ। সে গান গেয় জানায়-“ছয় রানীতে দেয়নি যাহা, সাত রানীতে সফল”। রাজা দরবেশের কথায় সপ্তম বিয়ে করেন এবং সফল হন।

বর্তমান সরকারের ক্ষেত্রেও এমন কোন দরবেশ দেখা দিতে পারে। আর সেই দরবেশ হতে পারে শেয়ার বাজারের আলোচিত দরবেশ বাবা। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন-“টাকা থাকলে ঢাকাকে নাকি চার ভাগ করতেন”!
টাকা সমস্যার উত্তম সমাধান হতে পারে শেয়ার বাজারে কোটি কোটি টাকা লুটে নেয়া সেই দরবেশ বাবা! তিনি হয়তো এখন গানের সুরে বলতে পারেন-“ঢাকা, দুই ভাগেতে হবেনা যাহা সাত ভাগেতে সফল”!
আমি আশা করছি, সফলতার জন্য ঢাকাকে দুই ভাগ নয় বরং সাত ভাগ করা হবে… আর এতেও যদি সফলতা না আসে, তাহলে রুপকথার জনগনের মতো আধুনিক যুগের জনগনকে অনন্ত প্রত্যাশা করতে হবে না….অপেক্ষা শুধু দুই বছর….অপেক্ষা পরবর্তি নির্বাচনের।