ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

যুবকের গ্রাহকের টাকায় যুবক একটি গনমাধ্যম এর মালিক হয়। এর পুরো শেয়ারই যুবকের ছিল। তারা জনাব ফালুকে চাঁদা হিসেবে ৪৩%শেয়ার দেয় এবং তাকে আর.টিভির চেয়ারম্যান করে। ফখর উদ্দিন আর মইন উদ্দিন এর সরকার পরবর্তিতে যুবক থেকে এই গনমাধ্যমটি কোন টাকা-পয়সা না দিয়ে অবৈধ ভাবে জোর করে নিয়ে নেয়। বর্তমান সরকারের সময়ে এসে আর.টিভি দখল করে বেংগল গ্রুপ। প্রশ্ন হলো কিভাবে জনগনের আমানতে গড়া সম্পত্তি আরএকজন ভোগ করে? যুবক বর্তমানে গ্রাহকের আমানেতের টাকা দিতে পারছেনা। এমতাবস্থায় এই সম্পদটি উদ্ধার হওয়া প্রযোজন। যুবক কমিশন যুবকের সম্পদ খুজে পায় না। এ নিয়ে দৈনিক যুগান্তরে ০৭/১০/১২ তারিখে একটি রিপোর্ট হয়েছে। [লিংক- http://jugantor.us/enews/issue/2012/10/07/news0246]

রিপোর্টটিতে যুবক কমিশনের হতাশা প্রকাশ পেযেছে। তারা বলছে যুবকের দায় দেনা থেকে সম্পদ অনেক কম। তাই কিভাবে গ্রাহকদের টাকা পরিশোধ হবে তা তারা বলতে পারছেন না। তার যুবকের তেমন সম্পদ খুজে পাননি যা দ্বার গ্রহকদের সম্পূর্ন টাকা শোধ সম্ভব। এতে গ্রাহকদের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে শংকা। যে যুবক কমিশন গঠন করা হয়েছে গ্রাহকদের পাওনা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে। তারা যদি এতোদিন পর এভাবে কথা বলে তা কি সহ্য করা যায়। এখানে যুবকের ধানমন্ডির বাড়ীর কথা বলা হলেও বলা হয়নি যুবকের বিনিয়োগকৃত টাকায় গড়া আর.টিভির কথা। যার ৫৭% শেয়ারের মালিক যুবক। বর্তমানে যা বেংগল গ্রুপ দখল করে আছে। এটাতো যুবকের সম্পদ। যুবক যদি এটা তাদের কাছে দিয়ে থাকে যুবক কমিশনের উচিত তা উতঘাটন করা। কিভাবে এটা বেংগল গ্রুপ নিল। জোর করে না কিনে । বৈধ না অবৈধ ভাবে। শুনা যায় এটা মইনু -ফখর সরকার জোর করে যুবক পরিচালকদের আটকে রেখে নির্যাতন করে নিয়ে নিয়েছে। এভাবে যদি সত্যই নেয়া হয় অবশ্যই তা বেআইনি। বিষয়টি খতিয়ে দেখে এ সম্পদ উদ্ধারে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য যুবক কমিশনের কাছে যুবক গ্রাহকরা দির্ঘদীন ধরে দাবী করে আসছে। কিন্তু কমিশন এ বিষয়ে কেন জানি নিরব। বলে যুবকে সম্পদ নাই। এই গনমাধ্যমটি যদি উদ্ধার করা যায় তবে এর শেয়ার প্রদান করে প্রতারিত গ্রাহকদের পাওনা অনেকটা পরিশোধ সম্ভব হবে। যুবক কমিশন বিক্রী হওয়া ধানমন্ডির বাড়ীর দলিল দস্তাবেজ কাগজপত্র খতিয়ে দেখার কথা বলেছে। সেটা যদি হয় তাহলে আর.টিভি কিভাবে যুবক থেকে বেংগল গ্রুপের দখলি সম্পত্তি হলো তা খতিয়ে দেখতে অসুবিধা কোথায়?