ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

 

আজ সেই ভয়াল কাল রাত্রি। ১৯৭১ সালে এই দিনে রাতের আঁধারে নিরিহ জনতার উপর নিশৃংস ভাবে হামলে পরে পাক হানাদার বাহিনি। নিরিহ পথচারী থেকে শুরু করে গলির ভিক্ষুকও বাদ যায়নি তাদের অত্যাচার থেকে। বাদ যায়নি নারী শিশুরাও। রেহায় পায়নি ছাত্র শিক্ষক পেশাজীবিরাও। বিশ্বযুদ্ধের পর ২৫ শে মার্চ সবচেয়ে বড় গনহত্যা স্বীকার বাংলাদেশ।

কেন এই হত্যা? কেন এই বর্বরতা? কেন এই নারকীয়তা? কেন এই পৈশাচিকতা? তবে ওরা কি কোন মানব জাত কেউ নয়? ওদের নিসংসতা দেখে পশুও লজ্জা পাবে। তবে কি ওরা পশুর অধম? নাকি ওদের জম্ম পরিচয় ঠিক নাই? কোন মানুষকি কোন মানুষকে এভাবে হত্যা করতে পারে। আসলে ওরা হাইওয়ান। ইবলিশ শয়তান বা তার চেয়েও বড় কিছু।

ওরা ভেবেছিল ভয় দেখিয়ে হত্যা করে নির্যাতন করে আমাদের দাবিয়ে রাখতে পারবে। কিন্তু তাদের সেই ধারনা মিথ্যা আর অবান্তর প্রামন করে বাংলাদেশ আজ স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বে মাথা তুলে দাড়িয়ে আছে। এই একটি রাত আমাদের জীবনে যন্ত্রনা আর কষ্ট নিয়ে এলেও তা প্রসব যন্ত্রনার মত আমাদের জন্য সাপেবড় হয়েছে। এই প্রসব যন্ত্রনায় জম্ম নিল নতুন এক আশা। নতুন এক চেতনা। নতুন এক দেশ। আমার বাংলাদেশ।

যাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে এ স্বাধীনতা তাদের শ্রদ্ধা জানাই। জানাই সালাম। জানাই অকুণ্ঠ হৃদয় নিংরানো ভালবাসা।

এই রাত আমাদের বার বার স্মরন করিয়ে দেয় কত ত্যাগ আর কষ্টে আজ আমরা স্বাধীন। আসুন সবাই স্বাধীনতা আর সার্বভৌমত্ব রক্ষায় দেশের কল্যানে কাজ করি।