ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

 

৫ ওয়াক্ত নামাজ ফরজ। আমাদের মধ্যে সে নামাজ পড়ার গুরুত্ব নাই। অথচ কোরবানী সবার উপর ফরজ না। কিন্তু না দিতে পারলে লজ্জায় শেষ হইয়া যাই। হায়রে মুসলমান, নামাজ পড়িনা এজন্য কখনো কি লজ্জিত হয়েছি?

গরুটা কত বড়? দাম কত বেশি? ভালই গোশ হবে। এই টাইপের ভাবনা নিয়া কোরবানি দেওয়া মানে টাকা জলে ফেলা। তাই শুধু আল্লাকে খুশির নিয়তে পশু কোরবানি করতে হবে।

কোরবানি করার জন্য যেমন নিখুঁত পশু জরুরী । তেমনি জরুরী হালাল উপার্জন। আপনার কোরবানীর টাাকটা হাললাতো। সুদ বা ঘুষের নয়তো বা কারো কান্নায় ভেজা নয়তো। একটু ভাবুন। দূনীতিও করবেন আবার সে টাকায় কোরবানীও দিবেন। এটা কি কোরবানী হবে? একটু ভাবুন।
মানুষকে কষ্ট দিয়ে টাকা উপর্যন করে সে টাকায় কোরবানী করা যুকিযুক্ত নয়। কোরবানীর পশু কোরবানীর পূর্বে মনের পশুর কোরবানী প্রয়োজন। গরুর সেলফি তোলায় পূণ্য নাই। গরুটা হক হালাল টাকায় কিনার মধ্যে পূণ্য।