ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

Rtv ৫৭% শেয়ার যুবকের। ভুরু কুচকে হয়তো ভাবছেন যুবকের মানে কোন যুবকের? সেই যুবকের যারা লাখো মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য গড়েছিল যুব কর্মসংস্থান সোসাইটি (যুবক)। একটি প্রেরনা। আজ তারা জনগনের কাছে প্রতারক কেন? যারা যুবকের সকল সম্পদ লুটে নিলো তারা বহাল তবিয়তে তা ভোগ করছে। আর প্রতারক খেতাব নিয়ে যুবক আজ অসহায়ের মত রয়েছে। যুবকের সকল সম্পদের কথা নাই বা বললাম। শুধু আর.টিভির কথাই বলি।

ডি.জি.এফ আই এই প্রতিষ্ঠানটি জোর করে নিয়ে নেয়। মইনু আহমেদ আর.টি.ভি দিয়ে দেন বেঙ্গলগ্রুপের কাছে। এর বিনিময়ে তার ভাইয়ের নির্বাচনে অর্থ যোগান দেন।

বর্তমানে বেঙ্গল গ্রুপের মোর্শেদ সাহেব এর চেয়ারম্যান। যেখানে চেয়ারম্যন হিসেবে থাকার কথা ছিল যুবকের পরিচালকদের। এর আগেতো যুবকের চেয়ারম্যন সাহেবই আর.টিভির চেয়ারম্যান ছিলেন।
তিনি হলেন আবু মো: সাইদ। যা হোক চেয়ারম্যান যে হোক যুবকের ৫৭% শেয়ারের মালিক কিন্তু মোর্শেদ গং হতে পারেনি। সম্প্রতি তারা যুবককে প্রস্তাব করেছে ৫৭% শেয়ার তাদের কাছে বিক্রি করে দিতে।
এতবর একটা লাভ জনক প্রতিষ্ঠান যুবক কেন বিক্রি করবে।

বরং এখনো আর.টিভি যা লাভ করছে তার ন্যায্য হিস্যা যুবককে দেয়া হচেছ না। তা দেয়া হলে তা দিয়ে বাকি ৪৩% শেয়ার ক্রয় করতে পারবে যুবক। মনে হচেছ এদেশটা মগের মুল্লুক। যুবকের গ্রাহকরা আজ তাদের টাকার জন্য মরিয়া। এ অবস্থায় যুবক কমিশণ গঠন করেছে সরকার। কমিশন যদি যুবকের এ লাভ জনক প্রতিষ্ঠানটি হায়নাদের কবল থেকে উদ্ধার করে দেন তাহলে যুবক তার গ্রাহকের টাকা পরিশোধ করে নতুন করে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারবে।

আর.টিভি উদ্ধারে র‌্যালি