ময়মনসিংহের জয়নুল উদ্যান: নববর্ষের প্রথম প্রহরে

সূর্য উঠে গড়িয়েছে কিছুটা। আকাশে বেশ মেঘ। ঘড়ির কাঁটা সাত ছোঁয়নি তখনও। উদ্যানের পথে মানুষের আনাগোনায় বৈশাখ; কী দারুণ ফুরফুরে বাতাস! নদের ধার ধুয়ে, গাছের পাতাসব নাচিয়ে এসে আছড়ে পড়ছে গায়ে। সাজুগুজু পথে এবং মাঠে, মোড়ে মোড়ে, গাছের গায়ে– আজ নতুন বছর শুরু। শুভ নববর্ষ ১৪২৫। ময়মনসিংহের জয়নুল আবেদীন উদ্যান ও এর আশপাশ ঘিরে প্রতিবারের… Read more »

ক্যাটাগরীঃ ভিডিও

যে বইয়ের নাম দেখে অনেকেই ভ্রু কুঁচকাবেন এবার

“জন্মান্ধ জঙ্গলে পৃথিবীটা ক্রমশ গোপন; মূলত শেওলাগ্রন্থে লেখা         আমাদের পিচ্ছিল জীবন” হ্যাঁ, জীবন সত্যিই পিচ্ছিল। তারও চেয়ে পিচ্ছিল জীবনের পথ-ঘাট। জন্মালেই তো জীবন। ইরি ধানের পোকার দেশ লাগে? লাগে না। কিন্তু মানুষের জন্য লাগে, আর স্বাভাবিক বেঁচে থাকা, নানারঙ স্বপ্নের বুননধারণ, আকাঙ্ক্ষার আসা-যাওয়ায় যাপন উদযাপন মানুষের জীবনের স্বাভাবিক প্রয়োজন। মানুষ মানুষকে পণ্য করে, জীবিকা… Read more »

ক্যাটাগরীঃ পাঠাগার

একুশের প্রথম কবিতা: কাঁদতে আসিনি ফাঁসির দাবি নিয়ে এসেছি

মাহবুব-উল আলম চৌধুরীর লেখা এই কবিতাটি আমাকে ভীষণভাবে আন্দোলিত করে। কবিতার দু’তিন জায়গায় ‘পাকিস্তান’ শব্দটি আছে। তখনকার সময়ে সেটি প্রাসঙ্গিক ছিল, যেহেতু বাংলাদেশ তখনও জন্মায়নি। তবে আবৃত্তির সময় ওই শব্দগুলোকে বাদ দেওয়া হয়েছে; শ্রুতি/বোধ বিভ্রাট এড়িয়েই। ভাষার মাসে এই কবিতাটি অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক বলেই পাঠকদের কানে উচ্চারণগুলো নিবেদনের আগ্রহ। ভালো লাগলে এ সাধ সার্থক। ভাষা শহীদদের… Read more »

ক্যাটাগরীঃ পাঠাগার

ময়মনসিংহে শারদ উৎসব

দুর্গাবাড়ি এবং নাটকঘর লেন পূজা মণ্ডপ থেকে ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭, সন্ধ্যায়।

দরদ আমার কার লাগি উছলায় এতো?

মৃত শিশু ভেসে আসে আমার দেশের সমুদ্রসীমায়। আমার বুক হুহু করে উঠে না। ওই যে শয়তান সুচি, যে কিনা বিশ্বের সবচেয়ে নন্দিত পুরস্কার বাগিয়েছে শান্তির লাগি, যখন রাষ্ট্রময় মৃত্যুর উৎসবে নেতৃত্ব দিয়ে চলে, আমার খারাপ লাগে না। ওদিকে মওত কা সওদাগর মোদি যখন ধর্মীয় সম্প্রীতির বাণী শোনায়, আমার হাসি পায় না। আবার যখন দেখি মহানবীর… Read more »

গ্রহণের রাতে চাঁদের চেহারা

চন্দ্রগ্রহণ ৮ আগস্ট ২০১৭ রাত একটা চৌদ্দ ময়মনসিংহ

slide

ক্যাটাগরীঃ ফটো

পাতায় পাতায় লেখা তাহার নাম

বইয়ের  কিংবা ওয়েবসাইটের পাতায় সবুজ থাকে না। হাতের মুঠোয় গেইমের একটা যন্ত্র পেলে এখন শিশুদের আর সবুজ চাই না। নগরের শিশু তো বটেই, আমাদের দ্রুত পরিবর্তনশীল গ্রামগুলোতেও শিশুর দৃষ্টি ইনডোরের বিনোদনে আটকে থাকে। সম্পন্ন ঘরের গ্রামীণ শিশুদের অনেকেরই ফড়িং ধরা, সাঁতার শেখা, মাছ ধরার মতো দারুণ অভিজ্ঞতা এখন আর হয়ে ওঠছে না। প্রযুক্তি শুধু নগরে… Read more »

ঘুম বাতাসের দ্বীপে সবুজ বিহারে একদিন

একটা প্রজাপতির পিছু ছুটছি। পতঙ্গ কখনও সুস্থির খুব একটা হয় না। কিন্তু এ যেনো একটু বেশিই অস্থির। ফুল-পাতা ছুঁয়ে দিয়েই ছুট। বসছে না তেমন কোথাও। আবার বসতে গেলেও টিকতে পারছে না; কারণ বাতাসের ঢেউ। পাশেই আরেক ক্ষেতে গরুর পিঠে চড়ে বসেছে সৌখিন ফিঙে এক। গাভীর ওলানে মত্ত, মায়ের মতো দেখতে একটি বাছুর। শিকারের আশায় চুপচাপ… Read more »

দুরন্ত গতির পতঙ্গ এক

বর্ষায় বাঁশের খুব বাড় বাড়ে। পাতায় পাতায় স্নিগ্ধ সবুজ চকচকে হয়ে ফুটে ওঠে। বাড়ির উঠোনে দুটি ঝাড়। গত বৈশাখের ঝড়ে বাঁশের মাথাসব এদিক-ওদিক ছড়িয়ে গেছে। এবার দেখি, এক ঝাড়ে ফুল ফুটেছে। শীর্ণ কঞ্চির শরীর থেকে এসব ফুল চারদিকে ছড়িয়ে আছে। এই ফুলে নিশ্চয়ই মধু আছে; নয়তো এদিকে মৌমাছির আনাগোনা হবার কথা নয়। বাঁশঝাড়ের তলে ছায়া… Read more »

মেঘ গুড়গুড় ভোরে

পৃথিবীর আরেক রাত শেষে ভোর এলো। বিদ্যুৎ চলে গেলো। খিড়কি খুলতেই ছটফটে বাতাসের তোড়, নাকে মুখে। ঠাণ্ডা, স্নিগ্ধ, ভীষণ শিরিশিরে। আর খুব খুব ফিকে আলোয় তাকাতেই, আকাশজুড়ে মেঘ। সাদাকালো উড়াল পাহাড় যেনো। বইছে ভীষণ। দ্রুত রঙ বদলে নীলাভ থেকে কুচকুচে কালো। এভাবে এই ঘুমন্ত শহরে, জানলার ধারে  বসে, এই আষাঢ়-ভোরে, ভূমিষ্ঠপ্রায় বৃষ্টির মুখ দেখা যায়। এসময়… Read more »