ক্যাটেগরিঃ নাগরিক মত-অমত

মানুষের জীবন ক্ষণস্থায়ী। এই ক্ষণস্থায়ী জীবন যদি সুন্দর ও সুস্থতার মধ্য দিয়ে যেতে না পারি তবে জীবনটাই বৃথা বলে আমি মনে করি। ভাল কাজ ও মানুষসহ সকল প্রাণীকে ভালবাসা সুন্দর মানসিকতার পরিচয় বহন করে। সুরকে আগলে ধরে ছন্দের সামাজিকতা আসে প্রেম ও ভালবাসা থেকে। সেই প্রেম ও সামাজিকতার সমাজ দিন দিন কমে যাচ্ছে।

প্রতিহিংসা মহাপাপ। এই হিংসার বশবর্তী হয়ে আমরা নানা অপকর্মে লিপ্ত হচ্ছি। সমাজে হিংসা ও ক্ষমতার লোভে মানুষ প্রতিনিয়ত জিঘাংসার পথে পা বাড়াচ্ছে। ফলে সমাজ হয়ে পড়ছে অশান্তির সমাজ। এই সমাজই আজ ছড়িয়ে দিচ্ছে জঙ্গিবাদের বিষ। আমাদরে এটা রুখতে হবে। সুর ও ছন্দের সামাজিকতায় ফিরে আসতে হবে।

মানুষের কল্যাণ করা এক বড় ধর্ম। এ ধর্মের কারণেই পৃথিবী এখনও টিকে আছে। সমাজের প্রতিটি মানুষ একে অপরের কল্যাণ কামনা করে। কিন্তু এই কল্যাণ কামনা করা সমাজ থেকে উঠে যাচ্ছে। ফলে এখন আর যুবক-যুবকে মিল নেই। শিশুরা দল বেঁধে আর খেলা করে না। কিশোররা এখন একা একা ঘুরে বেড়ায়। হাতে থাকে প্রযুক্তির ছোঁয়া। ফলে সমাজের কল্যাণের ধারণার দিকে তারা মাথা ঘামায় না। গ্রাম-গঞ্জ-শহর সবখানে এখন স্বার্থপরতার কাহিনী। জ্ঞাতি সম্পর্ক উঠে যাচ্ছে। সুর আনন্দ আর ছন্দের সামাজিকতা নেই।